১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর

১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর, এই প্রশ্নটি অনেক সময় ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে জানতে চাওয়া হয়, তাই ১৯৭০ সালের নির্বাচন ও 1970 সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রধান কর্মসূচি কি ছিল সম্পর্কে অনেকেই জানতে চান অনেকে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসে ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব অপরিসীম। কারণ ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিপুল ভোটে নিরঙ্কুশ বিজয়ী হলেও তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তান সরকার ক্ষমতা স্থান্তর করেন না।

যার ফলে দেশ ক্রমান্বয়ে স্বাধীনতা যুদ্ধের দিকে অগ্রসর হলও। নিচে ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করা হলো।

১৯৭০ সালের নির্বাচন কিভাবে হয়েছিল?

১৯৭০ সালের নির্বাচন কিভাবে হয়েছিল
১৯৭০ সালের নির্বাচন কিভাবে হয়েছিল

ইয়াহিয়া খানের আমলে প্রথমবারের মতো সাধারণ নির্বাচন হয় ১৯৭০ সালে।

অক্টোবর মাসে নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও বন্যার কারণে কিছু জায়গায় ১৯৭০ এর নভেম্বর ও ডিসেম্বরে এবং কিছু জায়গায় ১৯৭১ সালের জানুয়ারি মাসে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

১৯৭০ এর নির্বাচনে পূর্ব পাকিস্তানে ৩০০ আসনের মধ্যে ২৮৮ আসনে জয়লাভ করে আওয়ামীলীগ।

অন্যদিকে পশ্চিম পাকিস্তানে ১৩৮ টি আসনের মধ্যে পাকিস্তান পিপলস পার্টি মাত্র ৮১ টি সিটে জয়লাভ করে। বাকি আসনগুলোতে অন্যান্য দল জয় পায়।

কথা ছিলও অধিক আসনে বিজয়ী দলকে ক্ষমতা স্থানান্তর করা হবে। তবে তা নিয়ে ভিতরে ভিতরে ষড়যন্ত্র করে উপর থেকে শুধু আজ কাল করে বাংলার মানুষদের ঘোরানো হচ্ছিল।

এখান থেকেই মূলত সিদ্ধান্ত স্বাধীনতা যুদ্ধের দিকে মোর নেয়। তবে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু গুরুত্ব শুধু ১৯৭০ এর নির্বাচন ই নয়।

সাধারণ নির্বাচনের একই সাথে প্রাদেশিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগপূর্ব পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের ৩০০টি আসনের মধ্যে ২৮৮টিতে জয়লাভ করে।

পাকিস্তান পিপলস পার্টি পশ্চিম পাকিস্তানে ১৩৮টি আসনের ৮১টিতে জয়লাভ করে। কনজারভেটিভ দলগুলি নির্বাচনে খুব সুবিধা করতে পারেনি।

ফ্রী ফায়ার কে আবিষ্কার করেছেন? | ফ্রী ফায়ার কে আবিষ্কার করেছে

ইহুদিরা কোন নবীর অনুসারী? ইহুদি সম্প্রদায় কোন নবীকে অনুসারন করেন

১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর বলা হলে আপনি যে উত্তর দিবেন

১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর
১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর

স্বাধীনতাকামী বাঙালির স্বাধীনতার লক্ষ্যে অগ্রসর হওয়াকে তরণ্বিত করেছে ১৯৭০ এর নির্বাচন। যদিও ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে নানা প্রতিবন্ধকতায় বাঙালি তাদের অধিকার আদায়ের সচেষ্ট ছিল অনেক আগে থেকেই।

১৯৭০ সালের নির্বাচনটি ছিলও পাকিস্তানের ইতিহাসে অন্যতম একমাত্র সাধারণ নির্বাচন। নতুন জাতি গঠনে এই নির্বাচনটি ছিলও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। চলুন দেখে নেওয়া যাক ১৯৭০ সালের নির্বাচনের পটভূমি বা গুরুত্ব সম্পর্কে বিস্তারিত।

১৯৭০ সালের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতীয়তাবাদী এবং রাজনৈতিক শাসনতান্ত্রিক ভিত্তি প্রতিষ্ঠিত হয়।

ডিসকাউন্টে সকল সিমের মিনিট, ইন্টারনেট ও বান্ডেল অফার
ক্রয় করতে DESH OFFER সাইটে ভিজিট করুন।

একই সাথে দেশের রাজনৈতিক অবস্থার পরিপূর্ণতা পায়।এই নির্বাচনের ফলাফলে আওয়ামী লীগের বিজয বাঙ্গালীদের মধ্যে রাজনৈতিক সংহতি দৃঢ় হয়। গোটা বাঙ্গালী জাতি নতুন আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠে।

৭০ এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ গোটা বাঙালি জাতিকে পাকিস্তানি ঔপনিবেশিক শাসন থেকে মুক্তির সম্ভাবনাময় পথ দেখায়।

একই দিকে ১৯৭০ সালের নির্বাচনের মাধ্যমে পূর্ব বাংলায় রাজনৈতিক নেতৃত্ব সৃষ্টির বহিঃপ্রকাশ ছিলএই নির্বাচন।

যার ফল স্রুতিতে বজ্র কণ্ঠের নেতা শেখ মুজিবুর রহমান বাঙ্গালীদের জনপ্রিয় নেতা হিসেবে আরও জনপ্রিয় হয়ে গেলেন।

একটি দেশে একদিনে দেশ চালানোর মতো নেতা তৈরি হয় না। ১৯৪৮ সাল থেকে১৯৭০ সালের মধ্যে বহু নেতৃত্ব বাঙ্গালী জাতি পেলেও তা প্রমাণের মঞ্চ ছিলও ৭০ এর নির্বাচন।

এই নির্বাচনের মাধ্যমে জাতি আরও একবার জাগ্রত হয়। বাঙ্গালী ভাবতে থাকে যে, পরে পরে মার আর কত খেতে হবে, হোক প্রতিবাদ। এই মনোভাবকেই কাজে লাগিয়ে যুদ্ধে নেমেছিল বাঙ্গালী জাতি।

ফেব্রুয়ারি মাসের দিবস সমূহ সম্পর্কে জেনে নিন

ভার্চুয়াল রিয়েলিটি কি? ভার্চুয়াল রিয়েলিটির ধারণা তত্ত্ব ও প্রতিষ্ঠা

ডিসকাউন্টে সকল সিমের মিনিট, ইন্টারনেট ও বান্ডেল অফার
ক্রয় করতে DESH OFFER সাইটে ভিজিট করুন।

১৪ ফেব্রুয়ারি কি দিবস? ১৪ ফেব্রুয়ারি সম্পর্কে ইসলাম কি বলে

৭০ এর নির্বাচনে আলাদা রাষ্ট্রের দাবী প্রমাণ

১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে পশ্চিম পাকিস্তানে কনয়াসনে জয়ী হয়নি আওয়ামিলিগ।

একি ভাবে পূর্ব পাকিস্তানে কোনও আসন জয়ী হয়নি পিপলস পার্টি। এখানেই প্রমাণিত হয় যে, যে অংশের মানুষ সেই অংশকে সাপোর্ট করে এবং ক্ষমতায় চায়।

এখান থেকেই বাংলাদেশকে স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্য বাঙ্গালীদের দাবী আরও জোরদার হতে থাকে। কিন্তু পাকিস্তানের ইয়াহিয়া খান ক্ষমতা স্থানান্তর না করেই বিভিন্ন টালবাহনা শুরু করতে থাকে।

১৯৭০ সালের নির্বাচনের ফলাফল দারা স্পষ্ট হয় যে, জাতি হিসেবে পাকিস্তানের কোন ভিত্তি নাই। নির্বাচনে জনসাধারণের ভোটের রায় দ্বারা তাদের আদর্শগত বিচার বিবেচনার বৈশিষ্ট স্পষ্ট হয়ে যায়।

এছাড়া ১৯৬৬ সালের ছয়-দফাকে আওয়ামী লীগ তাদের নির্বাচনী ইশতেহার হিসেবে ঘোষণা করে। যার ফলে ১৯৭০ সালের নির্বাচনে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ ব্যাপকভাবে ভোট দিয়ে সরাসরি ছয় দফা কে সমর্থন করে।

জনগণ আওয়ামী লীগকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত করলে পূর্ব পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকারের দাপট কমতে থাকে।

এর ফলে অসহযোগ আন্দোলনের সময় পূর্ব পাকিস্তানের নেতৃত্ব আওয়ামী লীগের নির্দেশে গোটা পূর্ব বাংলা পরিচালিত হতে থাকে।

মূলত ৭০ এর নির্বাচনের মধ্য দিয়ে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ স্ব-শাসন এবং আত্মপ্রতিষ্ঠার দাবী আদায়ের সুযোগ পেয়েছিল।

সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ যেটি, একটি দেশ পরিচালনার জন্য অবশ্যই সংবিধান প্রয়োজন।

আর ১৯৭০ সালের নির্বাচনের পর জনপ্রতিনিধিগণ জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করেন সংবিধান প্রণয়নের মাধ্যমে। এতে জনগন আরও সতেস্ট হয়।

সর্বোপরি, ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ এর নিরঙ্কুশ জয়ের পরে গোটা বাঙ্গালী জাতি শেখ মুজিবের নেতৃত্বে স্বাধীনতা যুদ্ধের স্বপ্ন দেখে শুরু করেন।

আর বাঙ্গালীর স্বপ্ন আরও একধাপ আগিয়ে যায় বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের দ্বারা। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করে সেদিন

৭০ এর নির্বাচনের অন্যতম গুরুত্ব ছিলও এই যে, এই নির্বাচনের পরেই বাঙ্গালী জাতি স্বাধীনতা যুদ্ধের অনেকগুলি আশা, ভরশা, তিব্র আকাঙ্ক্ষা, স্বাধীনতার গন্ধ পায়।

তাই বলা যায় ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব অপরিসীম। আপনিও ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর বলা হলে সহজেই বলতে পারবেন।

1970 সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রধান কর্মসূচি কি ছিল

অনেকেই 1970 সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রধান কর্মসূচি কি ছিল সেই সম্পর্কে জানতে চান।

আশা করি ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর পোস্টটি পড়র পর এই সম্পর্কে আপনার কোন প্রশ্ন থাকবেনা।

যে-যত কথাই বলুক বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ বাংলাদেশকে স্বাধীন করার জন্য অনেক ত্যাগ তিতিক্ষা স্বীকার করেছে এবং অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

আরও পড়ুনঃ

রোজা ভাঙার কারণ সমূহ | রোজা রেখে কোন কাজ গুলো করবেন না

রোজা কত তারিখে ২০২৩? | রোজার নিয়ত ও ইফতারের দোয়া

নির্বাচন সম্পর্কিত প্রশ্ন উত্তর

১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ কতটি আসন লাভ করে?

পূর্ব পাকিস্তানে ৩০০ আসনের মধ্যে ২৮৮ টি আসন লাভ করেছিলও আওয়ামী লীগ।

১৯৭০ সালের নির্বাচনের ফলাফল কি ছিল?

এই নির্বাচনে ১৯৭০ সালে পূর্ব পাকিস্তানে আওয়ামীলীগ অনেক বড় ব্যবধানে জয়লাভ করলে পাকিস্তান সরকার ক্ষমতা স্থান্তর করেন নাই। যার ফলে আস্তে আস্তে স্বাধীনতা যুদ্ধের দিকে ধাবিত হয়। 

১৯৭০ সালের নির্বাচনে পশ্চিম পাকিস্তান পিপলস পার্টি কতটি আসন পেয়েছিল?

১৯৭০ সালের নির্বাচনে পশ্চিম পাকিস্তান পিপলস পার্টি ১৩৮ আসনের মধ্যে ৮৮ আসন পেয়ে নিজ প্রদেশে বিজয় হয়।

সর্বশেষ কথা – ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করা নিয়ে

আজকের পোষ্টে আমরা ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর -তে পেরেছি।

আশা করছি এই মুক্তিযুদ্ধে ৭০ এর নির্বাচন এর ভুমিকা বা গুরুত্ব বুঝতে পেরেছেন।

৭০ এর নির্বাচন দ্বারা বাঙ্গালী জাতি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করার মতো শক্তি। সাহস, অনুপ্রেরণা পেয়েছে।

তাই এই দেশের জন্য স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য ৭০ এর নির্বাচনের মুল ভুমিকা।

এরপরেও আরও কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করে জানান।

এবং ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর সম্পর্কে কিছু জানাতে চাইলে কমেন্টে জানিয়ে দিন।

অনলাইনে ঘরে বসে টাকা ইনকাম ও ইন্টারনেট থেকে সঠিক তথ্য পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের ওয়ের সাইট।

জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক পেজ

আরও পড়ুনঃ

ফ্রী ফায়ার কে আবিষ্কার করেছেন? | ফ্রী ফায়ার কে আবিষ্কার করেছে

ইহুদিরা কোন নবীর অনুসারী? ইহুদি সম্প্রদায় কোন নবীকে অনুসারন করেন

১ম রোজার ফজিলত কি? | রোজার ফজিলত সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

কমদামে মিনিট, ইন্টারনেট ও বান্ডেল অফার কিনতে ভিজিট করুনঃ এখানে ক্লিক করুন
ডিজিটাল টাচ ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এই পেজ ভিজিট করুন
ডিজিটাল টাচ সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুনঃ এই লিংকে
অনলাইনে টাকা ইনকাম সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুনঃ www.digitaltuch.com সাইট ।

Leave a Comment