চুলের জন্য কোন তেল ভালো? | কিভাবে চুল ভালো রাখবেন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ চুলের জন্য কোন তেল ভালো সে সম্পর্কে জানার জন্য আপনারা অনেকেই গুগল সার্চ করে থাকেন। আপনারা অনেকেই চুলের নানান ধরনের সমস্যা নিয়ে ভুগছেন এবং চুলের মধ্যে কোন তেল গুলো দিলে আপনাদের জন্য ভাল হবে সে সম্পর্কে জানার জন্য চেষ্টা করছেন।

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা চুলের জন্য ভালো তেল কোনগুলো সে সম্পর্কে আপনাদেরকে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করব। আপনাদের সামনে আজকে এমন কিছু তেলের উল্লেখ করব যে সকল তেল গুলো আপনাদের চুলের জন্য খুবই ভালো এবং কার্যকরী ফলাফল এনে দেবে।

তাই অবশ্যই আমাদের আজকের এই আর্টিকেলের শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য অনুরোধ করা হলো।

চুলের জন্য কোন তেল সবচেয়ে ভালো

চুলের জন্য কোন তেল সবচেয়ে ভালো
চুলের জন্য কোন তেল সবচেয়ে ভালো

আপনার চুলের যত্নের জন্য সবচেয়ে উপকারী হচ্ছে তেল এ বিষয়টি আমাদের সকলের জানা আছে। 

কিন্তু কোন তেল গুলো আপনার চুলের জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহার উপযোগী এবং সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে সম্পর্কে আমরা সঠিকভাবে জানিনা।

চুলের যত্নে প্রায় অনেক দেড়ি ভাল হলেও কিছু উল্লেখযোগ্য তেল রয়েছে যেগুলোর মাঝে বেশি উপকার পাওয়া যায়। যেমন-

  • নারিকেল তেল।
  • আমন্ড অয়েল।
  • অলিভ অয়েল।
  • ক্যাস্টর অয়েল।
  • তিলের তেল।

নারিকেল তেলঃ প্রতিটি মানুষের চুলের জন্য স্বাভাবিকভাবেই নারিকেল তেল খুবই ভালো এবং কার্যকরী একটি তেল।

আপনার চুলের বিভিন্ন ধরনের ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক প্রতিরোধ করার জন্য নারকেল তেল সাহায্য করে।

এছাড়াও স্ক্যাল্প কোমল রাতে নারিকেল তেল সাহায্য করে।

গবেষণায় পরীক্ষিত ভাবে দেখা মিলেছে যে ভার্জিন কোকোনাট অয়েল থেকে কোনরকম প্রদাহ হয় না।

ফলে আপনার চুল ওঠার সমস্যা থাকলে এই তেল আপনার জন্য খুবই কার্যকরী।

নারিকেল তেল ময়শ্চারাইজার হিসেবও খুব ভালো এবং চুলের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে সাহায্য করে৷

আমন্ড অয়েলঃ এই তেলটি হালকা এবং এই তেলটি একেবারেই চটচটে নয়। আমন্ড অয়েল এর মাঝে রয়েছে ভিটামিন ই এর গুনে ভরপুর।

এই তেল টি আপনার চুলে পুষ্টি জোগাতে সাহায্য করে,  চুলের আর্দ্রতা এবং চুল মজবুত ও ঝলমলে সাহায্য।

আমন্ড অয়েল স্ক্যাল্পেও পুষ্টি জোগায় এবং খুসকি কমাতে সাহায্য করে।

অলিভ অয়েল | চুলের জন্য কোন তেল ভালো

তেলটিতে পর্যাপ্ত এসেনশিয়াল ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে যা স্ক্যাল্পকে পুনরুজ্জীবিত করে, চুলের গোড়ায় পুষ্টি জোগায়, এবং চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

এই হেয়ার অয়েলটিতে পর্যাপ্ত ময়শ্চারাইজার রয়েছে এবং এটি ভিটামিন ই-তে ভরপুর যা চুলের বৃদ্ধির জন্য খুবই প্রয়োজনীয়।

এই তেলে ওলেইক অ্যাসিড রয়েছে যা খুব সহজেই চুলের গভীরে প্রবেশ করে আর্দ্রতা ধরে রাখে।

ক্যাস্টর অয়েলঃ যারা অত্যধিক চুল ওঠার শিকার, তাদের শরীরে সাধারণত প্রস্টাগ্ল্যান্ডিন বা পিজিডি২ হরমোনের আধিক্য থাকে।

গবেষণা বলছে, ক্যাস্টর অয়েলে উপস্থিত একটি উপাদান দিয়ে এই হরমোনটিকে দমন করা যায়, ফলে চুল পড়া বন্ধ হয়ে চুলের বৃদ্ধি ভালো হতে শুরু করে।

তিলের তেলঃ বহু আয়ুর্বেদিক ওষুধে বেস অয়েল হিসেবে তিলের তেল ব্যবহার করা হয়।

তিলের তেল চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এবং স্ক্যাল্পের সংক্রমণ কমায়।

চুল কন্ডিশনিং করতে, স্ক্যাল্পে পুষ্টির জোগান দিতে এবং খুসকি কমানোর জন্য হট অয়েল ট্রিটমেন্টে হামেশাই ব্যবহার করা হয় তিলের তেল।

আরও পড়ুনঃ

শেষের কবিতার কিছু বিখ্যাত লাইন 

ময়মনসিংহ কিসের জন্য বিখ্যাত?

অধ্যক্ষ বরাবর দরখাস্ত কিভাবে লিখতে হয়?

চুলের জন্য কোন তেল ভালো FAQS

চুলের জন্য কোন তেল ভালো?

নারিকেল তেল।
আমন্ড অয়েল।
অলিভ অয়েল।
ক্যাস্টর অয়েল।
তিলের তেল।

উপসংহার 

প্রিয় পাঠকবৃন্দ চুলের জন্য কোন তেল ভালো সে সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদেরকে বিস্তারিত তথ্য প্রদান করা হয়েছে।

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের খুবই ভালো লেগেছে এবং আপনারা আজকের এই আর্টিকেল থেকে নিজেদের চুলের যত্ন কোন তারিখে করবেন সে সম্পর্কে জানতে পেরেছেন।

যদি আপনাদের এই আর্টিকেল সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন অথবা মতামত থাকে তাহলে সেটি আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন।

এ ছাড়াও অনেকে রয়েছেন যারা অনলাইন থেকে ঘরে বসে আয় করতে চাচ্ছেন কিন্তু কোন প্লাটফর্মে কাজ করবেন সে সম্পর্কে কোন ধারনা নেই।

আপনার যদি আগ্রহ থেকে থাকে এ বিষয়ে তাহলে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

কেননা আমাদের ওয়েবসাইটে রয়েছে এ সংক্রান্ত অনেক আর্টিকেল।

সেই সাথে আমাদেরও এইটাই সংক্রান্ত সকল আপডেট পেতে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক পেইজে। 

Leave a Comment

three − one =