What is bitcoin in Bangla mining, price | বিটকয়েন কি, বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে

What is bitcoin in Bangla পোস্টে আপনাদের সবাইকে স্বাগতম। বিটকয়েন কি, বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে, কিভাবে উৎপন্ন হয়, সব মিলিয়ে বর্তমান সময়ে অনেকেরি মনে এমন অনেক প্রশ্ন থাকতে পারে এটাই স্বাভাবিক? ইন্টারনেটে বর্তমানে লোকজন তাদের প্রয়োজন অনুসারে বিভিন্ন পণ্য ক্রয় করে থাকে, এই কারণে আজ সবার জীবন সহজ হয়ে গেছে এবং তারা ঘরে বসে।

এখন লোকেরা সব ধরনের তথ্য পাওয়া থেকে শুরু করে, অনলাইনে কেনাকাটা, টিকিট বুকিং ইত্যাদি সব কিছুই ইন্টারনেটের সাহায্যে করতে সক্ষম হচ্ছেন।

আজকাল ইন্টারনেটের সাহায্যে ঘরে বসে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব হয়েছে। ঘরে বসে ইন্টারনেট ব্যাবহার করে অর্থ উপার্জন করার অনেক পদ্দতি রয়েছে। সেই উপায়গুলির মধ্যে একটি হল বিটকয়েন, যার মাধ্যমে আমরা প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারি ইন্টারনেট থেকে।

What is bitcoin in Bangla | bitcoin কি, বিটকয়েন কি

bitcoin কি, বিটকয়েন কি
bitcoin কি, বিটকয়েন কি

আপনারা অনেকে নিশ্চয়ই বিটকয়েন সম্পর্কে শুনেছেন এবং যারা বিটকয়েন সম্পর্কে কিছু জানেন না তারা আমার সাথে থাকুন, আজ আপনারা এই নিবন্ধ জানতে পারবেন bitcoin in Bangla। হ্যাঁ, আজ আমি আপনাকে বলব বিটকয়েন কি এই সম্পর্কে।

বিটকয়েন একটি virtual currency বা ভার্চুয়াল অনলাইন মুদ্রা। ইন্টারনেট বেববহার করা যায় এমন অন্যান্য মুদ্রার মতোই টাকা, ডলার ইত্যাদির মতো একইভাবে বিটকয়েন ও একটি ডিজিটাল মুদ্রা।

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ব্যাবহার হওয়া অন্যান্য মুদ্রার ( currencies ) থেকে সম্পূর্ণ আলাদা এটি, কারণ আপনি টাকার মত Bitcoin দেখতে বা স্পর্শ করতে পারবেন না।

আমরা শুধুমাত্র একটি অনলাইন মানিব্যাগে (online wallet) হিসাবে নিজেদের হিসাবে বিটকয়েন সংরক্ষণ করতে পারি।

বিটকয়েন কে আবিস্কার করেন 

মূলত বিটকয়েন ২০০৯ সালে সাতোশি নাকামোতো (Satoshi Nakamoto) নামক এক বেক্তি আবিষ্কার করেছিলেন এবং তারপর থেকে এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ে চলছে। বিটকয়েন একটি বিকেন্দ্রীভূত মুদ্রা (decentralized currency), যার অর্থ হচ্ছে এটি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কোন ব্যাংক বা কর্তৃপক্ষ বা সরকার নেই, অর্থাৎ এর মালিক কেউ নয়।

বিটকয়েন যে কেউ ব্যবহার করতে পারে যেমন আমরা সবাই ইন্টারনেট ব্যবহার করছি এবং এর কোন মালিক নেই, একইভাবে বিটকয়েন ও আছে।

বিটকয়েন কেন ব্যবহার করা হয়?

বর্তমানে বিটকয়েন ব্যাবহার করে আমরা অনলাইন পেমেন্ট করতে পারি, বিটকয়েন পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্কে (Bitcoin peer to peer network based) ভিত্তিক কাজ করে থাকে।

যার অর্থ এই যে, সাধারণ বিটকয়েন ব্যাবহার কারীদের মধ্যে অন্য কেউ ব্যাংক, ক্রেডিট কার্ড বা আবার কোম্পানির মাধ্যমে লেনদেন করতে পারে।

বিটকয়েন একটি global payment পদ্দতি। যদিও আমাদের দেশে এটি নিয়ে এখন কিছু সমস্যা রয়েছে। বিটকয়েনের লেনদেন সবচেয়ে বেশি টেজে ও দক্ষ মনে হয়। আজকের দিনে অনেক ইন্টারনেট ব্যাবহারকারী মানুষ বিটকয়েন এর সাথে যুক্ত, যেমন অনলাইন ডেভেলপার, উদ্যোক্তা, অলাভজনক প্রতিষ্ঠানসমূহ।

বিটকয়েন ছাড়া অন্যান্য ডিজিটাল মুদ্রা ব্যবহার করে আমরা যখন অনলাইনে লেনদেন করি, তখন আমাদের ব্যাংকের পেমেন্ট প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হয়, তবেই আমরা অনলাইন পেমেন্ট করতে সক্ষম হই এবং আমাদের দ্বারা করা প্রতিটি লেনদেনের হিসাব আমাদের ব্যাংক একাউন্টে উপস্থিত থাকে যাতে এটি পরবর্তীতে সনাক্ত করা যায়।

কিন্তু কেউ বিটকয়েনের মালিক নয়, কোথায় এবং কত টাকা ব্যয় করা হয়েছে এটির পক্রিয়া কিছুটা ভিন্ন। তাই বিটকয়েন দিয়ে করা লেনদেনগুলি একটি পাবলিক লেজার অ্যাকাউন্টে রেকর্ড করা হয় যাকে বিটকয়েন “ব্লকচেইন” বলা হয়।

সেখানে, বিটকয়েন দিয়ে করা সমস্ত লেনদেনের বিবরণ সংরক্ষণ করা হয় এবং একই ব্লকচেইন লেনদেন হয়েছে কি না তার প্রমাণ।

১ বিটকয়েন সমান কত টাকা | Bitcoin price in BD

আজকের দিনে বিটকয়েনের মূল্য প্রায় 44,570 ডলার, মানে একটি বিটকয়েনের মূল্য বাংলাদেশি টাকায় 3,786,132।

তবে এই বিটকয়েন মান কম -বেশি হতে থাকে কারণ এটি নিয়ন্ত্রণ করার কোন কর্তৃপক্ষ নেই, তাই এর মূল্য তার চাহিদা অনুযায়ী পরিবর্তিত হতে থাকে।

What is bitcoin wallet? বিটকয়েন মানিব্যাগ কি?  

আমরা শুধুমাত্র ইলেকট্রনিকভাবে (electronically) বিটকয়েন সংরক্ষণ করতে পারি এবং এটি রাখার জন্য একটি bitcoin wallet প্রয়োজন।

বর্তমানে অনেক ধরনের বিটকয়েন ওয়ালেট চলমান রয়েছে যেমন ডেস্কটপ ওয়ালেট, মোবাইল ওয়ালেট, অনলাইন/ ওয়েব ভিত্তিক ওয়ালেট, হার্ডওয়্যার ওয়ালেট, আপনি কোন ওয়ালেট গুলির মধ্যে বিটকয়েন ব্যবহার করবেন, আপনাকে এতে একাউন্ট তৈরি করতে হবে।

এই bitcoin wallet আমাদের একটি ঠিকানা আকারে একটি অনন্য আইডি ( unique id) দেয়, যেমন আপনি যদি কোথাও থেকে বিটকয়েন উপার্জন করেছেন এবং আপনাকে এটি আপনার অ্যাকাউন্টে সংরক্ষণ করতে হবে, তাহলে আপনার সেই ঠিকানাটি সেখানে প্রয়োজন হবে এবং এর সাহায্যে আপনি বিটকয়েন স্থানান্তর করতে পারেন আপনার অ্যাকাউন্টে মানিব্যাগে রাখতে পারেন।

এছাড়াও, আপনি যদি বিটকয়েন কিনতে বা বিক্রি করতে চান, তাহলেও আপনার একটি bitcoin wallet প্রয়োজন হবে এবং পরবর্তীতে আপনি যখন বিটকয়েন বিক্রি করেন বা তার বিনিময়ে যে সমস্ত অর্থ পান তাও আপনার একটি ব্যাংক একাউন্টে বিটকয়েন ওয়ালেট মাধ্যমে স্থানান্তরিত হতে পারে।

কিভাবে বিটকয়েন উপার্জন করা যায়

বন্ধুরা আমরা তিনটি উপায়ে Bitcoin উপার্জন করতে পারি। কিভাবে আপনি সহজে একটি বিটকয়েন একাউন্ট তৈরি করতে  হবে তা সম্পূর্ণ বর্ণনা করা হয়েছে।

প্রথম পদ্দতিঃ

প্রথম উপায় হল আপনার কাছে যদি পর্যাপ্ত টাকা থাকে, তাহলে আপনি সরাসরি ৯৯৯ ডলার প্রদান করার মাধ্যমে একটি বিটকয়েন একাউন্ট কিনতে পারেন।

এমন ভাবার কারন নেই জে আপনার কাছে ৯৯৯ ডলার না থাকলে আপনি বিটকয়েন কিনতে পারবেন না।আপনি যদি চান, তবে আপনি বিটকয়েন “satoshi” এর ক্ষুদ্রতম ইউনিটও ক্রয় করতে পারবেন।

আমাদের দেশে যেমন ১ টাকা হতে ১০০ পয়সা হিসাব আছে, ঠিক তেমনি ১ বিটকয়েন সমান ১০০ মিলিয়ন “satoshi” পদ্দতি আছে।

তাই আপনি যদি চান, আপনি অল্প পরিমাণে বিটকয়েন “satoshi” ক্রয় করে ধীরে ধীরে ১ বা তার বেশি বিটকয়েন জমা করতে পারেন আপনার বিটকয়েন একাউন্ট।

যখন আপনার কাছে থাকা বিটকয়েন থাকবে এবং যখন এর বাজার মূল্য বৃদ্ধি পাবে, তখন আপনি এটি বিক্রি করে আরো বেশি টাকা আয় করতে পারবেন।

দ্বিতীয় পদ্দতিঃ

বর্তমানে অনলাইনে সবথেকে জনপ্রিয় উপায় হল যে আপনি যদি অনলাইনে কারও কাছে কোন পণ্য সেল করেন এবং পণ্য বা সেবা গ্রহিতার কাছে যদি বিটকয়েন উপস্থিত থাকে, তাহলে আপনি টাকার বিনিময়ে বিটকয়েন নিতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনি আপনার পণ্য তাদের কাছে বিক্রি করবেন এবং বিনিময়ে বিটকয়েন ও পাবেন, যা আপনি আপনার বিটকয়েন ওয়ালেট সংরক্ষণ করা হবে।

পরবর্তীতে আপনি সেই বিটকয়েন গুলি আপনার সুবিধামতো সময়ে অন্য জে কোন ব্যক্তির কাছে উচ্চ মূল্যে বিক্রি করেতে পারবেন এবং ভালো লাভ পেতে পারেন।

তৃতীয় উপায়ঃ

আরও একটি বিটকয়েন তৈরি করার পদ্দতি হল বিটকয়েন মাইনিং।

এই কাজতি করতে আমাদের একটি হাই-স্পিড প্রসেসর সহ একটি কম্পিউটারের প্রয়োজন হবে, এবং যার হার্ডওয়্যারও ভালো হওয়া জরুরী।

তবে বেশিরভাগ লোকেরা শুধুমাত্র অনলাইন পেমেন্টের জন্য বিটকয়েন ব্যবহার করে থাকে এবং যখন কেউ বিটকয়েন দিয়ে অর্থ প্রদান করে তখন সেই লেনদেনটি যাচাই করা হয়, এবং যা করা জরুরী।

বিটকয়েন মাইনিং কি?

বিটকয়েন যারা তাদের যাচাই করে, আমাদেরকে মাইনার বলা হয় এবং আর এই মাইনার করার পক্রিয়াকে মাইনিং বলা হয়।

সেই মাইনারদের high performance computer এবং GPU রয়েছে, তারা এর মাধ্যমে বিটকয়েন লেনদেন যাচাই করে। তারা যাচাই করে দেখেন যে লেনদেন ঠিক আছে কি না বা এতে কোন ধরনের হেরফের হয়েছে কিনা।

এই যাচাইয়ের বিনিময়ে, তারা পুরস্কার হিসেবে কিছু বিটকয়েন পায় এবং এভাবে নতুন বিটকয়েন বাজারে আসে।

যে কেউ এই বিটকয়েন তৈরি পদ্দতি অনুসরন করতে পারেন, আগেই বলেছি এর জন্য আপনার একটি উচ্চ গতির প্রসেসর সহ একটি কম্পিউটার প্রয়োজন, যা কেনার জন্য প্রত্যেকের বাজেটে ও সামর্থ্য সবার নেই।

পৃথিবীতে প্রায় প্রতিটি দেশের বছরে একটি নির্দিষ্ট পরিমানে মুদ্রা মুদ্রণ করার সীমা রয়েছে, যেমন দেশিটি বছরে এতগুলি নোট মুদ্রণ করতে পারেন।

একইভাবে, বিটকয়েনের খেত্রেও এমন কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে, যার সিমা ২১ মিলিয়ন, এর বেশি বিটকয়েন বাজারে প্রবেশ করতে পারে না । অর্থাৎ, বিটকয়েন বাৎসরিক সীমা মাত্র ২১ মিলিয়ন, এর চেয়ে বেশি বিটকয়েন কখনও পাওয়া যাবে না।

এখন বর্তমানে প্রায় ১৩ মিলিয়ন বিটকয়েন বাজারে এসেছে এবং নতুন বিটকয়েন গুলি এখন মাইনিং এর মাধ্যমে বাজারে আসবে।

Bitcoin ব্যবহার করতে সুবিধা কি?

  1. বন্ধুরা বিটকয়েন দারা লেনদেনের ফি, আপনার ক্রেডিট কার্ড এবং ডেবিট কার্ড দ্বারা পরিশোধের চেয়ে অনেক কম।

2. আপনি বিশ্বের যে কোন জায়গায় এবং পছন্দমত সময়ে বিটকয়েন সেন্ড করতে পারেন, কোন ধরনের ঝামেলা ছাড়াই।

3. আমাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট গুলির ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড ব্লক করে দেয়, এমন সমস্যা বিটকয়েন একাউন্ট নেই বা এমন সমস্যা এখানে ঘটে না। তাই এখন আপনি বলতে পারেন বিটকয়েনের কোন একাউন্ট ব্লক নেই, নিশ্চিন্তে ব্যাবহার করা যায়।

4. আপনি চাইলে বিটকয়েনে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ করতে পারেন, তাহলে আপনি এটি থেকে অনেক সুবিধা পেতে পারেন। কারণ একটি জরিপে দেখা গেছে যে বিটকয়েনের দাম ক্রমান্বয়ে বাড়ছে, তাই আপনি এটি থেকে অনেক সুবিধা পেতে পারেন।

5. বন্ধুরা বিটকয়েন লেনদেন প্রক্রিয়া কিছুটা জটিল ধরনের, কোন দেশের সরকার বা কর্তৃপক্ষ যদি এই ধরণের মুদ্রার উপর নজর না রাখে, তাহলে অনেক লোক আছে যারা এটিকে ভুল কাজেও ব্যবহার করতে পারেন, তাহলে এটি তাদের জন্য উপকারী হলেও দেশের জন্য ক্ষতিকর।

বিটকয়েন ব্যবহারের অসুবিধা কি?

সুবিধা থেকে বিটকয়েন অসুবিধা গুলি বেশ জটিল। তাই বিটকয়েন নামক ডিজিটাল মুদ্রা বেওহার করার পূর্বে এই সম্পর্কে ভালো ভাবে জেনে নিন।

  1. মুলত বিটকয়েন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কোন কর্তৃপক্ষ, ব্যাংক বা সরকার নেই, তাই বিটকয়েনের দামে অনেক পরিবর্তন লক্ষণীয় হয়, তারপর এটি অনেকের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে।

2. যদি আপনার বিটকয়েন একাউন্ট কখনো হ্যাক হয়ে যায়, তাহলে আপনি আপনার সমস্ত বিটকয়েন হারাবেন এবং এটিকে ফিরিয়ে আনা যাবে না, এই ব্যাপারে কেউ আপনাকে সাহায্য করতে পারবে না।

বিটকয়েন কাকে বলে?

আশা করি উপরোক্ত আলোচনা থেকে বুজতে পরেছেন বিটকয়েন মানে হলো, এটি এমন এক ধরণের মুদ্রা (currency), যেটাকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কোনো ধরণের ব্যাংক, সংস্থা বা government নেই।

সোজা কথায় বললে, bitcoin এর কোনো মালিক নেই।

কিভাবে বিটকয়েন কিনবেন?

আপনি সোনার মত বিটকয়েন কিনতে পারেন, সেটাও নিজ দেশীয় মুদ্রায়। তবে বাংলাদেশে বিটকয়েন ক্রয় করতে কোন ওয়েবসাইট নেই। তবে আপনি আন্তর্জাতিক কিছু ওয়েবসাইট থেকে ক্রয় করতে পারবেন।

বিটকয়েন ক্রয় করতে চাইলে আপনি এই সাইট গুলি ভিজিট করতে পারেন।

  • Wazirx
  • Unocoin
  • Zebpay

বিটকয়েন কি বাংলাদেশে বৈধ

আপনি নিশ্চয়ই এখন জানতে চাচ্ছেন বিটকয়েন কি বাংলাদেশে বৈধ, না বিটকয়েন বাংলাদেশে বৈধ করা হয়নি এখনও। তবে সরকারের ছিন্তা রয়েছে বিট কয়েন বিষয়ে, দেখাযাক সরকার কি করেন সামনের দিন গুলিতে।

আপনি আজ বিটকয়েন সম্পর্কে কি শিখলেন?

বন্ধুরা বিটকয়েন কি সম্পর্কিত তথ্য সম্পর্কে এই পর্যন্তই। আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন বিটকয়েন কি, কিভাবে এটি পাওয়া যাবে এবং এর সুবিধা এবং অসুবিধা কি কি।

অনলাইন জগতের খবর জানতে আমাদের সাথে থাকুন। আমরা চেষ্টা করব আপনাদের সঠিক তথ্য দেয়ার জন্য। জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Leave a Comment

five + 18 =