সুশাসনের মূল ভিত্তি কি?

সুপ্রিয় পাঠকগণ আপনাদের অনেকেরই প্রশ্ন রয়েছে সুশাসনের মূল ভিত্তি কি?  আজকের এই আর্টিকেলের রাতে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করতে চলেছি সুশাসনের মূল ভিত্তি। আমরা সকলেই জানি একটি দেশের জন্য সুশাসন কতটা প্রয়োজনীয় এবং সবকিছুর ঊর্ধ্বে সুশাসন খুবই প্রয়োজনীয়।

আমরা আপনাদেরকে আজকে এই আর্টিকেলের মাধ্যমে এর সম্পূর্ণ ব্যাখ্যা প্রদান করার চেষ্টা করব। এবং সুশাসন কাকে বলা হয়ে থাকে সে বিষয় গুলো আমি আপনাদেরকে আজকেরে আর্টিকেল এর মাধ্যমে জানাবো।

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনারা পুরোপুরি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়বেন এবং শেষ পর্যন্ত আমাদের সাথেই থাকবেন।

সুশাসনের মূল ভিত্তি

সুশাসনের মূল ভিত্তি
সুশাসনের মূল ভিত্তি

সকল দেশের জন্য সুশাসনের মূল ভিত্তি হচ্ছে আইনের শাসন।

মূলত সুশাসনের জন্য প্রয়োজন আইনের শাসন, দায়িত্বশীলতা, জবাবদিহিতা,  ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ এবং জনগণের অংশগ্রহণ গণতান্ত্রিক উপায়ে নিশ্চিত করে তাকে সুশাসন বলে।

একটি কথা আপনারা সবসময় মনে রাখবেন সুশাসনের মূল ভিত্তি বা সুশাসন তখনই সঠিক হয় যখন আইনের শাসন সঠিক থাকে।

বর্তমান সময়ে আমাদের রাষ্ট্র খুবই ভালো ভাবে পরিচালিত হচ্ছে তার একটি মাত্র কারণ হচ্ছে আইনের সঠিক ব্যবহার।

একটি রাষ্ট্রের জন্য এটি সবচেয়ে প্রয়োজনীয় এবং বৈধ উপকরণ।

অধিবাসী শব্দের অর্থ কি?

যেকোন দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে আইনের শাসন থাকা অত্যন্ত জরুরী কারণ এর মাধ্যমে স্বেচ্ছাচারী ক্ষমতা ও আধিপত্য রোধ করা সম্ভব।

একটি দেশের উন্নয়ন তখনই সম্ভব হয় যখন নারী এবং পুরুষ উভয়ের অংশগ্রহণের মাধ্যমে সুশাসনের ভিত্তিতে কাজ করা হয়।

বাংলাদেশে বর্তমানে পৃথিবীর বুকে একটি উন্নয়নশীল দেশ যার কারণ হচ্ছে বাংলাদেশের প্রতিটি জায়গায় বর্তমান সময়ে আইনের সঠিক ব্যবহার রয়েছে।

তবে এখনো পর্যন্ত অনেক জায়গায় আইনের সঠিক ব্যবহার হয় না এবং দুর্নীতি হচ্ছে। 

যার কারণে দেশ নানান ধরনের আর্থিক সংকটে পড়েছে। 

যদি আইনি সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে সকল কাজ করা হয় তাহলে দেশ কখনো আর্থিক সংকটে পড়বে না।

তাই বাংলাদেশ সরকারের উচিত আইনের সুশাসন তৈরি করা।

সুশাসনের মূল ভিত্তি আইনের শাসন

সুশাসন তৈরি করার জন্য দুইটি প্রধান বৈশিষ্ট্য রয়েছে। 

সব সময় মনে রাখবেন সুশাসন সবসময় অংশগ্রহণমূলক, ঐক্য ভিত্তিক,  দায়বদ্ধ, স্বচ্ছ, সংবেদনশীল, কার্যকর এবং সক্ষম, ন্যায় সঙ্গত এবং জনসম্পৃক্ত,  আইনের শাসন।

সুশাসন প্রতিষ্ঠানের বর্তমান ও ভবিষ্যতের সুস্থ চর্চার জন্য বিশেষভাবে সহায়ক।

এটি নীতি নির্ধারণ ওসিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষেত্রে দূরদর্শিতার পরিচয় দেয় এবং সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের সেরা স্বর্থগুলি বিবেচনায় নেয়।

  1. আইনের শাসনঃ-সুশাসনের জন্য নিরপেক্ষ আইনী কাঠামোর প্রয়োজন।নিয়ন্ত্রক সংস্থা দ্বারা সেই আইনি পরিকাঠামে অংশীদারদের সমাপূর্ণ সুরক্ষার জন্য প্রয়োগ করা হয়।
  2. স্বচ্ছতাঃ-স্বচ্ছতার অর্থ হচ্ছে তথ্যের আবাদ প্রবাহ। জন মানুষ এবং গণমাধ্যম এটি স্বাধিনভাবে উপলব্ধি করে মানুষের কল্যাণে সরাসরি সকল প্রশাসনিক নীতি এবং অনুশীলন দ্বারা সকল সিদ্ধান্ত এবং তাদের প্রয়োগগুলি প্রতিষ্ঠিত হয়।

আরও পড়ুনঃ

সবচেয়ে বুদ্ধিমান পশু কোনটি?

ধনপতি সওদাগর কোন নগরের অধিবাসী ছিলেন?

ব্যাডমিন্টন কোন দেশের জাতীয় খেলা

সুশাসনের মূল ভিত্তি কি FAQS

সুশাসনের মূল ভিত্তি কি?

যেকোনো দেশের জন্য সুশাসন এর মূল ভিত্তি হচ্ছে আইনের শাসন।

সুশাসনের প্রধান ভিত্তি কয়টি?

সুশাসনের প্রধান ভিত্তি হচ্ছে ২ টি।

উপসংহার 

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এ আর্টিকেল এর মাধ্যমে আমি আপনাদের সাথে সুশাসনের মূল ভিত্তি কি গুলো সম্পর্কে আলোচনা করেছি।

আমরা আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের ভাল লেগেছে এবং আপনারা সুশাসনের মূল ভিত্তি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে গিয়েছেন।

তবুও যদি আপনাদের এ বিষয়ে কোন প্রশ্ন বা মতামত থেকে থাকে তাহলে আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন। 

ডিজিটাল মার্কেটিংব্লগিংফেসবুক মার্কেটিংএফিলিয়েট মার্কেটিংসিপিএ মার্কেটিং ইত্যাদি অনলাইন প্লাটফর্ম গুলোতে কিভাবে আপনারা কাজ করতে পারেন সে সম্পর্কিত আর্টিকেলগুলো আমাদের ওয়েবসাইটে ইতিমধ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। 

আপনারা চাইলে সে সকল আর্টিকেলগুলো পড়তে পারেন। 

সেই সাথে আমাদের ওয়েবসাইটে সংক্রান্ত সকল আপডেট পেতে হলে চোখ রাখতে হবে আমাদের  ফেসবুক পেইজে। 

Leave a Comment

three × 1 =