বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার উপায় | জামানত ছাড়া সিটি ব্যাংক ও বিকাশ ঋণ

বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার উপায় সম্পর্কে আপনি জানেন কি? বিকাশ সম্প্রতি গ্রাহকদের জন্য ২০০০০ টাকা লোন স্কিম নিয়ে এসেছে। বিকাশ সিটি ব্যাংকের সাথে একত্রিত হয় সম্প্রতি এই ফিচারটি বিকাশ গ্রাহকদের জন্য উন্মুক্ত করেছে।

এক বছর পরীক্ষামূলক থাকার পর 15 ই ডিসেম্বর সেবাটি সেবার আনুষ্ঠানিকযাত্রা শুরু করেছে। শুরুতে 10 হাজার টাকা পর্যন্ত লোন দেওয়ার ঘোষণা দিলেও বর্তমানে বিকাশ থেকে একজন গ্রাহক ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত ডিজিটাল লোন পেতে পারেন।  

বেসরকারি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সিটি ব্যাংক থেকে জামানতবিহীন ঋণ বিকাশ পার্সোনাল একাউন্ট ব্যবহারকারীরা পেতে পারেন তাৎক্ষণিকভাবে। চলুন জেনে নেয়া যাক বিকাশ থেকে ডিজিটাল লোন নেয়ার পদ্ধতি। 

বিকাশ থেকে ডিজিটাল লোন নেয়ার উপায়

বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার উপায়
বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার উপায়

বর্তমানে বিকাশ কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে ডিজিটাল লোন কার্যক্রম চালু করেছে।  বর্তমান সকল বিকাশ অ্যাপ ব্যবহারকরী তাদের অ্যাপে একটি লোন অপশন দেখতে পাবেন।

তবে সকল বিকাশ ব্যবহারকারী এই লোনের জন্য উপযুক্ত নন। বিকাশ ও সিটি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ভোটার আইডি কার্ড ও  বিকাশ একাউন্টে লেনদেন পরিমাণ বিবেচনা ও যাচাই-বাছাই করে লোনের পরিমাণ নির্ধারণ করবেন। 

একটি পার্সোনাল বিকাশ একাউন্ট ব্যবহারকারী তার বিকাশে ভেরিফিকেশান অপশন দেখতে পাবেন।

বিকাশ গ্রাহককে ঋণ নিতে হলে তাকে বিকাশ একাউন্ট খোলার সময় ব্যবহার করা একই ই-কে-ওয়াইসি (eKYC) ফরমেটে বিকাশ তথ্য দেওয়া হয়েছিল সেই তথ্যটি সিটি ব্যাংকে দেয়া সম্মতি দিতে হবে।

বিকাশ একাউন্ট ই-কে-ওয়াইসি

তারপর ঋণের পরিমাণ ও নিজের পিন নির্ধারণের সাথে সাথেই বিকাশ একাউন্টে ডিজিটাল ঋণের টাকা বিকাশ একাউন্টে চলে আসবে।

 বিকাশের ক্ষেত্রে সিটি ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক নির্দেশনা অনুযায়ী পরিচালিত অন্যান্য বিধান কার্যকর করবে। 

বিকাশ থেকে লোন পাওয়ার যাবে বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে। বিকাশ লোন পেতে প্রথমেই আপনার বিকাশ একাউন্টটি হালনাগাদ করতে হবে। অর্থাৎ আপনার ভোটার আইডি কার্ড উভয় পাশের ছবি এবং নিজের ফেসবুক করার মাধ্যমে পুনরায় আপডেট করতে হবে। 

বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে বিকাশ থেকে ডিজিটাল ঋণ নেওয়া যাবে। বিকাশে ডিজিটাল লোন নেওয়ার নিয়ম হলোঃ

  • বিকাশে অ্যাপে প্রবেশ করুন, লোন / Loan এ ট্যাপ করুন
  • তথ্য শেয়ারের অনুমতি প্রদান করে পরবর্তী ধাপে এগিয়ে যান।
  • “লোন নিন / Take Loan” এ ট্যাপ করুন।
  • লোন এর পরিমাণ ও কিস্তির মেয়াদ সিলেক্ট করে এগিয়ে যান।
  • ব্যাংক থেকে কত টাকা লোন পাবেন ও কত টাকা পরিশোধ করতে হবে তা দেখে নিন, এগিয়ে যান বাটনে ট্যাপ করুন।
  • লোনের নির্দেশনা ও নিয়মাবলী পড়ে “সম্মতি দিন” বাটনে ট্যাপ করুন।
  • লোন কনফার্ম করতে আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন প্রদান করুন।
  • “লোন নিতে ট্যাপ করে ধরে রাখুন” এ ট্যাপ করে ধরে রাখুন।

উল্লেখিত তথ্য সঠিকভাবে অনুসরণ করলে আপনার একাউন্টে বিকাশ লোনের অর্থ যোগ হবে।

কত টাকা বিকাশ লোন পাওয়া যাবে?

বর্তমানে একজন বিকাশ গ্রাহক 500 টাকা থেকে 20 হাজার টাকা পর্যন্ত বিকাশ ঋণ পেতে পারেন। 

বিকাশ থেকে দেয়া এই ঋণের পরিমাণ ভবিষ্যতে বাড়ানো হতে পারে। 

বিকাশ ঋণ এ কত শতাংশ সুদ প্রদান করতে হবে?

বাংলাদেশ ব্যাংকের দেয়া নিয়মঅনুযায়ী বিকাশ লোন ৯ শতাংশ হারে সুদের বিনিময়ে পাওয়া যাবে এই বিকাশ ডিজিটাল ঋণ।

বিকাশ ডিজিটাল লোণ গ্রহণের শর্তসমূহ কী?

সিটি ব্যাংক ও বিকাশ থেকে পরিচালিত এই ডিজিটাল ঋণ সেবার সবচেয়ে সুবিধাজনক ব্যাপার হল উপযুক্ত বিকাশ গ্রাহক বিকাশ অ্যাপ থেকে যেকোনো সময় যেকোনো স্থানে বসে এই লোণ গ্রহণ করতে পারবেন।  

বিকাশের উপযুক্ত গ্রাহকগণ কোনো জামানত ছাড়াই ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত এই লোণ নিতে পারবেন।

তবে বর্তমানে শুধুমাত্র বাছাইকৃত বিকাশ পার্সোনাল একাউন্ট ব্যবহারকারী গ্রাহকরা এই লোন পাবেন। সবাই এই মুহুর্তে বিকাশ লোন নাও পেতে পারে।  

কোন বিকাশ গ্রাহক ঋণ পাবেন?

এই পোষ্টের উপরের অংশে আপনাদের জানানো হয়েছে আপাতত বিকাশ নির্বাচিত গ্রাহকগণকে 500 থেকে বিশ হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ দিচ্ছে।

আপনি বিকাশ লোন পাবেন কি পাবেন না বিষয়টি সম্পূর্ণ নির্ভর করছে সিটি ব্যাংক ও আলিবাবা গ্রুপের অ্যাফিলিয়েট ‘‘অ্যান্ট ফিনান্সিয়াল’’ সিস্টেম আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট দ্বারা আপনার একাউন্টে যাচাই-বাছাইয়ের পর।

তারাই নির্ধারণ করবে আপনার অ্যাকাউন্টটি বিকাশ লোন পাওয়ার জন্য উপযুক্ত কিনা। 

এবং আপনি কি পরিমান লোন পাবেন এই বিষয়টিও তারা নির্ধারণ করে দেবে এবং সহজেই আপনি আপনার বিকাশ লোন অপশন থেকে লোন নিতে পারবেন।

আড়ও পড়ুনঃ নগদ একাউন্টের সুবিধা 2022

কেননা এতে আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স প্রযুক্তি ব্যবহৃত হবে বলে জানিয়েছে বিকাশ কতৃপক্ষ। 

বিকাশ লোন পরিশোধের নিয়ম কী?

যেসকল গ্রাহক বিকাশ থেকে লোন গ্রহণ করেছেন লোন গ্রহণ এর পরবর্তী তিন মাসে তিনটি কিস্তিতে বিকাশ একাউন্ট থেকে নির্ধারিত তারিখে স্বয়ংক্রিয়ভাবে লোনের কিস্তি কেটে নেয়া হবে।

ঋণ পরিশোধের তারিখের আগে গ্রাহক এসএমএস এবং অ্যাপের মাধ্যমে এ সংক্রান্ত নোটিফিকেশন পাবেন।

বিকাশ থেকে ঋণ নেওয়ার পর ঋণ গ্রহণকারীরা ঠিক সময়ে ঋণ পরিশোধ করছে কিনা, তাও পর্যবেক্ষণ করা হবে। পরবর্তী ঋণ প্রদানে এই ব্যাপারটিও বিবেচনায় রাখা হবে। 

আরও পড়ুনঃ বিকাশ অ্যাপ অফার – ১৫০ টাকা পর্যন্ত বোনাস পাওয়ার উপায়

যদি কোনো বিকাশ গ্রাহক মনে করে যে বিকাশ ও সিটি ব্যাংকের লোন নির্দিষ্ট সময়ের আগে তিনি পরিশোধ করবেন সেটাও সম্ভব।

 আবার যদি কোনো কারণে কোনো গ্রাহক বিকাশের ঋণের টাকা নির্দিষ্ট সময়ে পরিষদ না করেন তবে তাকে বিলম্ব ফি দিতে হবে।

এই বিলম্ব মাসুল লোনের পরিমাণের উপর ২% (বার্ষিক)।

আরও পড়ুনঃ

নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করার নিয়ম অনলাইনে

এয়ারটেল নাম্বার চেক কোড | এয়ারটেল নাম্বার দেখার নিয়ম

জন্ম নিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক, সংশোধন ও অনলাইন কপি ডাউনলোড

বিকাশ থেকে কত টাকা লোন পাওয়া যাবে? কারা বিকাশ ঋণ পাবেন?

উপযুক্ত বিকাশ গ্রাহক 500 টাকা থেকে 20 হাজার টাকা পর্যন্ত বিকাশ লোন পেতে পারেন।

বিকাশ থেকে কিভাবে লোন নিব?

এখন বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার জন্য আপনি আপনার বিকাশ অ্যাপ এর মধ্যে লোনের অপশান ট্যাপ করুন এবং আপনার তথ্য হালনাগাদ না করা থাকলে তথ্যগুলো ভেরিফাই করার মাধ্যমে সহজেই আপনি বিকাশ লোন এর জন্য একজন উপযুক্ত হবেন।

বিকাশ লোন পরিশোধ করার নিয়ম?

সিটি ব্যাংক ও বিকাশ থেকে প্রদান করা লোন তিনটি কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে। প্রতি মাসের কিস্তি সম্পর্কে গ্রাহককে এসএমএস ও বিকাশ অ্যাপে নোটিফিকেশনের মাধ্যমে জানানো হবে।

উপসংহার,

আশা করি আপনি বিকাশ থেকে লোন নেয়ার পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। বিকাশ ঋণ সম্পর্কে আপনার আরো কিছু জানার থাকলে আমাদের কমেন্ট করে জানান। 

টেলিকম অফার, মোবাইল ব্যাংকিং অফার, অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে রেগুলার ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট।

এবং জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক পেজ

Leave a Comment

eight + nine =