নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস | নিজেকে সঠিক পথে রাখার কিছু উপায়

নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস বিষয়ে জানতে অনেকেই গুগল করে থাকেন। নিজেকে সঠিক পথে রাখার কিছু উপায় রয়েছে, তবে জীবনের খারাপ সময় আসবেই। আমাদের প্রত্যেক মানুষের জীবনে খারাপ সময় আসে। সবাই কি নিজেকে সঠিক পথে রাখতে পারে সবসময়? না। ভুল পদক্ষেপ নিয়ে থাকে অনেকেই। যার কারনেই জীবন পরিবর্তন হয়ে যায়।

জীবনের বাকি দিনগুলো হয়তো তার মাশুল দিয়ে যেতে হয়। নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস নিয়ে জানবো আজকের সম্পূর্ণ পোস্ট জুড়ে। 

আমাদের খারাপ সময় আসাটা কোনো খারাপ কিছু না, বরং খারাপ সময়ে সহ সবসময়ে নিজেকে সঠিক পথে কে কতটুকু রাখতে পারলো এটাই বড় কথা। যেমনটা বলা হয়েছিলো গরিব হয়ে জন্মানো তোমার অপরাধ না বরং গরিব হয়ে মরা তোমার অপরাধ। 

Contents hide

Life নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস 2022

নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস 2022
নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস 2022

জীবন একেক সময় একেক রকম যাবে। সবসময়ে নিজেকে রাখতে হবে সঠিক পথে। রাখতে হবে নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস।

সবসময় সব মুহূর্তে সব পরিস্থিতিতে নিজেকে সঠিক উপায়ে রাখার উপায় সম্পর্কে আজকে আমাদের এই আর্টিকেল।

চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে নিজেকে সবসময় সঠিক পথে রাখা যায়। 

কথা বলে নিজেকে হালকা রাখুন সবসময় 

কথা বলে নিজেকে হালকা রাখুন সবসময়
কথা বলে নিজেকে হালকা রাখুন সবসময়

প্রত্যেক মানুষ ঠকতে ঠকতে একটা সময়ে সব আশা ছেরে দেয়। আবার কোনো কাজ করতে না পেরেও হতাশ হয়ে জীবন ছেরে দেয় সময়ের কাছে। এমনটা একদমই উচিত না। নিজেকে সঠিক পথে রাখার জন্য এমনটি একদমই উচিত নয়।

আমাদের সবার উচিত জীবনের সবথেকে কঠিন সময়েও ঠিক রাখা। সঠিক পথে রাখা। 

আর এজন্য নিজেকে চুপচাপ না রেখে স্বাভাবিক কথা বার্তা বলে নিজেকে স্বাভাবিক রাখতে হবে। তবে হতাশার সময় নিজেকে হালকা করতে বলা কথাগুলো সবার সাথে বলা যাবে না। আপনি ভড়শা করতে পারেন এমন কাউকেই বলা উচিত।

দুঃখ। দুর্দশা , হতাশা সবকিছুই খুলে বলার মতো খুব ভরশা পাওয়া মতো কাউকে বলতে হবে। বৈজ্ঞানিক মতেও বলা হয়, নিজের কষ্টের কথা কারোর কাছে খুলে বললে হালকা হওয়া যায়। 

বর্তমান নিয়ে সবসময় যেভাবে ভাবতে হবে

life নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস
life নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস

যখন চারিদিক থেকে বিষাদ আর পরাজয় আপনাকে আঁকড়ে ধরবে তখন আপনার মধ্যে থাকা আবেগকে ঝেড়ে ফেলুন। সাথে আপনার অতীতের সব দুঃখ কষ্টকে মনের ভিতর থেকে বিদায় করুন। 

আমাদের অবশ্যই মনে রাখা উচিত যে অতীত পাল্টানোর কোনো ক্ষমতা নেই সেই অতীত ভেবে কোনো লাভ নেই।

তাছাড়া অতীত আমাদেরকে গ্রাস করে ফেলে। যা এখন এবং ভবিষ্যৎ এ সম্ভব তা নিয়ে ভাবুন নতুন করে সাজান। এতে আপনি নিজেকে সঠিক পথে রাখতে পারবেন। পারবেন নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস তৈরি করতে। 

আবেগ সংযত রাখুন – নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস গড়ুন 

অনেক ক্ষেত্রে আমরা নিজের আবেগকে কন্ট্রোল বা সংযত করতে পারি না। যার ফলে আমাদের মানসিক শারীরিক সব দিক থেকেই ক্ষতি হয়ে থাকে। যা হয়ত আমরা বুঝতেও পারি না। 

যেমন হতে পারে, আপনার অফিসের বস কোনো একটি বিষয়ে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কিন্তু আপনি তাকে বোঝাতেও পারছেন না আবার মান্তেও পারছেন না। যার কারণে আপনার মনের মধ্যে একটি রাগ বাসা বাধছে। 

এমনটা হলে ভেবে নিবেন আপনি সঠিক পথে নেই। এমন আবেগ নিয়ন্ত্রণ করে নিজেকে সঠিক পথে রাখতে হবে আপনাকে। এমন কিছু করতে হবে যার মাধ্যমে আপনাকে অবশ্যই নেতিবাচক আবেগ দূর করতে সাহায্য করবে। 

মনে রাখবেন, আপনি যত বেশি নিজেকে নিজের আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন আপনি নিজেকে তত ভালো রাখতে পারবেন। পারবেন নিজেকে সঠিক পথে রাখতে। 

life এ নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস পড়া জরুরী।

নিজের কাছে নিজেকে জবাবদিহিতা করুন । self respect নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস আপনাআপনি গড়ে উঠবে

আপনি যখন কোনো কাজ করবেন তখন নিজের সমালোচনা নিজে করুন। এতে করে কাজটিতে আপনার ভুল করার পরিমাণ কমে যাবে।

আবার নিজের কাছে নিজেকে প্রশ্ন করুন। নিজেই আবার সেই প্রশ্নের উত্তর দিন। তবেইতো আপনি নিজেকে সবার থেকে ভিন্ন করে নিজেকে নিজের জীবনের সঠিক পথে রাখতে পারবেন। 

আবার ভাবতে পারেন, আপনার বন্ধু যখন কোনো বিষয়ে পরামর্শের জন্য আপনার কাছে আসে আপনি তখন তাকে যে পরামর্শ দেন সেই পরামর্শ আপনি নিজেকে দেন। জীবনে সঠিক পথে থাকার এটি অন্যতম একটি সহজ পথ। 

আরও পড়ুনঃ

বিকাশে টাকা দেখার নিয়ম কি?

Brta.gov.bd ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক পদ্ধতি

ঘুরতে হবে । নিজের জন্য হলেও নিজেকে কিছু স্পেশাল সময় দিন । নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস আপনাআপনি তৈরি হবে 

সবসময় সুন্দর সময় যায় না। এর মানেই এই না যে জীবনের সবকিছু শেষ। একটি বিষয় আমাদের মনে রাখা উচিত যে, সময় বহমান। সময় কখনো থেমে থাকে না। সময় বহমান। 

নিজেকে সঠিক পথে রাখতে নিজের শারীরিক মানসিক স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে নিয়মিত ব্যাম করুন। বাহিরে কোথাও ঘুরতে যান বেরাতে যান। প্রতিদিন নিয়ম অনুযায়ী কাজ করুন জীবনের সাম্নের দিক এগোনোর জন্য। 

একটি বিষয়ে যেন আমরা ভুলে না যাই যে, ব্যস্ত মানুষ কখনোই অতীত নিয়ে পরে থাকে না, বরং বুদ্ধিমান ব্যস্ত মানুষ ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবে সবসময়।  এই পদক্ষেপ টিও একটি উপায় যা মাধ্যমে নিজেকে সঠিক পথে রাখা সম্ভব।  

কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে শিখুন। মনের শান্তি এনে দিবে কৃতজ্ঞতা, যা মাধ্যমে নিজেকে ধরে রাখতে পারবেন সঠিক পথে 

মুখ কালো  বা গোমড়া মুখ নিয়ে ঘোরাফেরা বন্ধ করুন। মনে রাখবেন কৃতজ্ঞতা আপনাকে মানসিক তৃপ্তি এনে দিয়ে পারে।

অর্থাৎ, আপনার জীবনে এমন কে আছে যার কাছে আপনি অনেক কৃতজ্ঞ। হতে পারে আপনার জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আপনাকে মানসিক আর্থিক এবং পরামর্শ দিয়ে সাহায্য করেছে। এমন মানুষের কাছে কৃতজ্ঞতা শিকার করুন। 

এমন লোকদের মধ্যে হয়ে থাকে বাবা, মা, সন্তান, স্বামী কিংবা স্ত্রী এবং খুব কাছের কোনো মানুষ জন। এমন মানুষের সাথে একটু আলাদা সময় কাটান। আসতে করে এই সব মানুষদের নিয়ে সুখে থাকতে লড়াই এ সাহায্য করুন। 

এভাবেও আপনি আপনার জীবনের লাইন ধরে রাখতে পারবেন। পারবেন ভালো ভাবে নিজেকে সঠিক পথে রাখতে। 

জয় না পেয়ে জীবনের সঠিক পথ থেকে সরে যাচ্ছেন ? বুঝতে পারছেন না কি করবেন ? 

অভিজ্ঞতা বলতে একটি বিষয় আছে। অভিজ্ঞতা এমন এক ধরনের নাম যা জীবনে যত বেশি অরজন করতে পারবেনপরবরতি জীবন আপনার তত সহজ হবে।

আপনি অভিজ্ঞতা নিয়ে খুব সহজে বুঝতে পারবেন জীবনের কোন সময়ে কি করা দরকার আর কি করতে হবে। 

জীবনে অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যান তাহলে কখনোই জীবনের সঠিক পথ থেকে বের হয়ে যাবেন না। 

নিজের সবকিছু নিজেই করুন । Life নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস তৈরি করুন 

কখনোই যেটা নিজের সম্ভব সেটি আপনি অন্যকে দিয়ে করতে যাবেন না।

ভায়া কাজ করানোর মতো নিজে নিজের পায়ে কুরাল মাড়ার মতো ভুল আর একটি নাই বললেই চলে। 

সবসময়ের জন্য মনে রাখবেন আপনার নিজের কাজ নিজের মতো আর কেউ করবে না। কেউ ভেবে চিন্তেও করবে না।

সবসময়ের জন্য একটু কষ্ট হলেও সাবধানতার সাথে ভেবে চিন্তে হিসেব করুন। জীবনে নিজের সঠিক পথ থেকে ছিটকে যেতে হবে নাহ। 

আরও পড়ুনঃ

টিকটক থেকে টাকা ইনকাম করার উপায় | TikTok Income Bangladesh

করোনা টেস্ট রিপোর্ট কিভাবে পাবো । How to get Corona test report

লেনদেনের ক্ষেত্রে স্পষ্টভাষী হন । নিজের স্বার্থ নিয়ে সচেতন থাকুন  

টাকা জীবনের পরেরই মূল্যবান জিনিস বলতে পারেন। এক্ষেত্রে নিজে উপার্জনের টাকা নিজের হাতে রাখুন। কাউকে টাকা দিলে এমন ভাবে দিয়ে দিবেন যেন ফেরত পাবেন না এমনটা ভেবেই দিবেন। টাকা দিলে তা ফিরে পাওয়ার আশা করবেন না। 

টাকার জন্য মানুষের সাথে সম্পর্ক নষ্ট হয়। টাকাকে ব্যক্তিগত করে রাখুন। তবে টাকা হলে অমানবিক হয়ে যাবেন না। এভাবেও আপনি নিজেই নিজের জীবনের সঠিক পথে খুব সহজেই থাকতে পারবেন। 

প্রকিত অর্থে জীবনে সঠিক পথে থাকা একান্ত নিজের ব্যক্তিগত ব্যপার। আপনি চাইলেই সঠিক পথে থাকতে পারবেন। তবে সমাজে কিছু বাধা হয়। কিন্তু যদি মন থাক সঠিক পথে থাকার তবে অবশ্যই থাকতে পারবেন।

নিয়মিত নিজ নিজ ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলতে হবে। সবার আগে মানসিকভাবে শান্তি বজায় রাখার চেষ্টা করতে হবে। সঠিক পথে থাকতে ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই। এতে করে নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস তৈরি হওয়ার পাশাপাশি আপনি একজন আদর্শবান মানুষ হতে পারবেন।

নিজের পথে সঠিক থাকতে অন্যের দায়িত্ব কম নিন।

ইতিমধ্যে যে নিয়ে ফেলেছেন তাতে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হলে নিজ উদ্যোগে ক্ষতি পূরণ দিয়ে দিন। নিজেকে গুছিয়ে আনুন। জীবনে ভালো থাকার জন্য একটু শান্তিতে থাকার জন্য সঠিক পথে থাকাতা সবচেয়ে জরুরি।  

ফেসবুকে নিজের সম্পর্কে স্ট্যাটাস

বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে ফেসবুক ব্যবহার করেন না অথচ মোবাইল ব্যবহার করেন এমন লোকের সংখ্যা খুবই কম।

 মূলত বর্তমানে লোকজন নিজের মনের ভাব নিজের আপন জন প্রিয়জনের কাছে প্রকাশের পূর্বে তার ফেসবুক ওয়ালে একটি পোষ্ট করে থাকে।

বর্তমানে নিজের মনের ভাব সমগ্র জাতিকে জানানো যায় একটি মাত্র পোস্ট এর মাধ্যমে। 

আপনিও চাইলে নিজেকে নিয়ে ফেসবুকে নিজের সম্পর্কে স্ট্যাটাস স্ট্যাটাস শেয়ার করতে পারেন উপরে উল্লেখিত স্ট্যাটাস সমূহের মধ্যে যে আপনার ভালো লাগে সেটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন।

আরও পড়ুনঃ

মাকে নিয়ে ইসলামিক উক্তি

 জীবন নিয়ে খুব কষ্টের এসএমএস

ঈদ মোবারক শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস পিকচা

নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস কি?

নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস হচ্ছে নিজের সম্পর্কে ভালো কিছু চিন্তা করা। যদি কোন কারনে আপনি নিজেকে নিয়ে ভাবতে না পারেন তবে, বিভিন্ন সাইটে দেয়া নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস গুলী পড়ুন এবং সঠিক পথে চলার চেষ্টা করুন।

শেষ কথা

আজকে আমরা জানতে চেষ্টা করেছি নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস নিয়ে ,অর্থাৎ- জীবনে সঠিক পথে থাকার কিছু উপায় সম্পর্কে।

আশা করছি আজকের আর্টিকেল life নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস থেকে আপনি একটু হলেও উপকৃত হয়েছেন। 

সব বিষয়ে নিত্য নতুন লেখা পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট। চোখ রাখুন আমাদের ফেসবুক পেজে। 

Leave a Comment

1 + three =