ঘাড় ব্যথা কিসের লক্ষণ? | ঘাড় ব্যথার কারণ ও প্রতিকার

সুপ্রিয় পাঠকবৃন্দ ঘাড় ব্যথা কিসের লক্ষণ সম্পর্কে জানার জন্য আপনারা অনেকেই গুগলের মাধ্যমে নিজেদের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। মূলত প্রতিটি মানুষই তার আলাদা আলাদা সময় মাঝে মাঝেই ঘাড়ে ব্যথা অনুভব করে থাকেন।

কিছু কিছু সময়ে ঘাড়ের ব্যথা খুব গুরুতর কিছু হয়ে থাকে আবার অনেক সময় কয়েকদিনের মাঝে এটি সেরে যায়। কিন্তু অন্য ক্ষেত্রে কোন সময় যদি আপনাদের ঘাড়ে ব্যথা গুরুতর ভাবে পান অথবা অসুস্থতা বেশি লক্ষ্য করেন সে ক্ষেত্রে নানা ধরনের সমস্যা হতে পারে।

অনেক সময় আমরা যখন মাথা বালিশে রেখে ঘুমাই সে ক্ষেত্রে ভুলভাবে মাথা রাখলে আমাদের ঘাড়ে ব্যথা করতে পারে।

তার ব্যয় সেটি হচ্ছে সাময়িকী ব্যথা একদিন কিংবা দুই দিনে ব্যথাটি থাকে এরপর এটি চলে যায়।

তবে আপনার যদি ব্যথাটি গুরুতর মনে হয় এবং আপনি যদি ঘাড়ে গুরুতর আঘাত পান সেক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই পরামর্শ নিতে হবে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের।

ঘাড় ব্যথার কারণ ও প্রতিকার

ঘাড় ব্যথার কারণ ও প্রতিকার
ঘাড় ব্যথার কারণ ও প্রতিকার

মূলত আমাদের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় নানান কারণে ব্যথা হতে পারে।

তবে আমাদের অত্যন্ত সচেতন যে জায়গায় থাকতে হয় সেটি হচ্ছে আমাদের ঘাড়।

মলতা ঘাড়ের ব্যথা খুবই ভয়ঙ্কর হয়ে থাকে এবং এটির জন্য আপনাকে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়।

তবে যেসব কারণে আপনার ঘাড়ে ব্যথা হতে পারে সে সম্পর্কে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো-

১. ঘাড়ের পেশিতে টান এবং চাপ লাগলে: 

আমাদের দৈনন্দিন যে সকল কার্যক্রম রয়েছে সেই সকল কার্যক্রমের যারা ভূলবশত অনেক সময় ঘাড়ে ব্যথা হতে পারে।

যেমন উদাহরণস্বরূপ আমরা বলতে পারি ভুলবশত যদি আমরা অন্য ভঙ্গিতে বসে বা অথবা কোন কাজ করি সে ক্ষেত্রে নানান ধরনের সমস্যা ঘাড়ে হয়ে থাকে।

এছাড়াও অবস্থান পরিবর্তন না করে খুব বেশি সময় ধরে ডেস্কে কাজ করা।

ঘুমের সময় বেকায়দায় ঘাড় রাখা এবং ব্যায়ামের সময় ঘাড়ে ঝাঁকুনি লাগা।

২. আঘাত:

পড়ে যাওয়া, গাড়ি দুর্ঘটনা এবং খেলাধুলার বিভিন্ন আঘাতে ঘাড় অধিকতর ঝুঁকিতে থাকে।

অন্যদিকে ঘাড়ের হাড় (সারভাইকাল কশেরুকা) ভেঙে গেলে মেরুদণ্ডও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

হঠাৎ মাথার ঝাঁকুনি থেকে ঘাড়ের আঘাতকে সাধারণত হুইপ্ল্যাশ বা কশাঘাত বলা হয়।

৩. হার্ট অ্যাটাক:

হঠাৎ হার্ট অ্যাটাক হলে কিংবা রক্তচাপ অনেক বেশি বেড়ে গেলে ঘাড় ব্যথা হতে পারে।

যার সাথে অন্যান্য উপসর্গগুলোও দেখা দেয় যেমন–হাঁপানি, ঘাম, বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া, বাহু বা চোয়াল ব্যথা।

এ অবস্থায় অনতিবিলম্বে হাসপাতালে যেতে হবে।

৪. মেনিনজাইটিস:

মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডকে ঘিরে থাকে এক ধরনের পাতলা টিস্যু।

এই পাতলা টিস্যুতে জীবানুর সংক্রমণ বা প্রদাহকে মেনিনজাইটিস বলে।

মেনিনজাইটিসের লক্ষণগুলো হলো মাথাব্যথা, বমি বমি ভাব বা বমি, আলোর প্রতি সংবেদনশীলতা, জ্বর।

মেনিনজাইটিস জীবনঘাতি হয়ে উঠতে পারে।

তাই কারো যদি মেনিনজাইটিসের লক্ষণ থাকে তবে অবিলম্বে চিকিৎসা কেন্দ্রে যেতে হবে।

৫. ঘাড় এবং এর পার্শ্ববর্তী এলাকার অসুস্থতা, যাতে ঘাড়ের পেশি বা হাড়ে বেশি চাপ পড়ে:

কিছু রোগ আছে যেগুলোতে ঘাড় এবং এর আশেপাশের পেশিগুলো দুর্বল হয়ে যায়, ফলে ঘাড়ের হাড়ের ওপর মাথার ওজন বেশি পড়ে।

আরও পড়ুনঃ

ম্যানিলা কিসের জাত?

ইছামতি কিসের নাম?

গোবি মরুভূমি কোথায় অবস্থিত? 

ঘাড় ব্যথার কারণ | ঘাড় ব্যথা কিসের লক্ষণ

  • রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস বা বাত: এই রোগে ব্যথা, হাড়ের জয়েন্ট ফুলে যাওয়া এবং হাড়ের অস্বাভাবিকতা হয়। ঘাড় বা এর আশেপাশে এগুলো হলে, ঘাড়ে ব্যথা হতে পারে।
  • অস্টিওপোরোসিস: এতে হাড় দুর্বল হয় এবং তাতে ছোটো ছোটো ফাটল হতে পারে। অস্টিওপোরোসিস প্রায়শই হাতে বা হাঁটুতে ঘটে, তবে এটি ঘাড়েও হতে পারে যার ফলে সৃষ্টি হয় ব্যথা।
  • স্পন্ডিলাইটিস: আপনার বয়স বাড়ার সাথে সাথে সার্ভিকাল ডিস্ক ক্ষয়ে যেতে পারে। এটি স্পন্ডিলাইটিস বা ঘাড়ের অস্টিওআর্থারাইটিস নামে পরিচিত। এটি কশেরুকাগুলোর মাঝে জায়গা কমিয়ে দেয় এবং জয়েন্টগুলোতে চাপ দেয়।
  • স্লিপড ডিস্ক: যেকোনো ট্রমা বা আঘাত থেকে যখন কশেরুকার একটি ডিস্ক বেরিয়ে আসে, তাতে মেরুদণ্ডের ওপর চাপ পড়তে পারে। একে হার্নিয়েটেড সার্ভিকাল ডিস্ক বলা হয়, যা ফেটে যাওয়া বা স্লিপড ডিস্ক নামেও পরিচিত।
  • স্পাইনাল স্টেনোসিস: স্পাইনাল স্টেনোসিস ঘটে যখন মেরুদণ্ড সরু  হয়ে আসে এবং তাতে চাপ পড়ে। এটি আর্থ্রাইটিস বা অন্যান্য অসুস্থতার কারণে দীর্ঘমেয়াদি প্রদাহ থেকে হতে পারে।
  • জীবাণুর সংক্রমণ,
  • ঘাড়ের চামড়ার ওপরে বা ভেতরে ফোড়া,
  • টিউমার,
  • মেরুদণ্ডের ক্যান্সার।

তাই ঘাড়ে ব্যথা, বিশেষ করে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার ক্ষেত্রে ঘরে বসে না থেকে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

হতে পারে, আপনার ঘাড়ে ব্যথা শরীরের অন্য কোনো জটিল সমস্যার জানান দিচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এর জনক কে?

পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর মসজিদ কোনগুলো?

চুলের জন্য কোন তেল ভালো?

ঘাড় ব্যথা কিসের লক্ষণ FAQS

ঘাড় ব্যথা কিসের লক্ষণ?

মূলত ঘাড় ব্যথা নানান কারনে হতে পারে। এই ঘাড় ব্যথার নানা ধরনের লক্ষন দেখা দিতে পারে।

উপসংহার 

সুপ্রিয় পাঠকগণ ঘাড় ব্যথা কিসের লক্ষণ সম্পর্কে জানার আগ্রহ আপনাদের অনেকের ছিল।

আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদেরকে ঘাড় ব্যথা কিসের লক্ষণ সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হয়েছে।

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের কাছে ভালো লাগবে।

আপনাদের যদি আজকের এই আর্টিকেল সংক্রান্ত কোনো প্রশ্ন বা মতামত থাকে তাহলে অবশ্যই সেটি আমাদের জানাতে পারেন।

আপনারা যারা অনলাইন থেকে আয় করার কথা ভাবছেন তারা অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারেন।

কেননা আমাদের ওয়েবসাইটে রয়েছে অনলাইন ভিত্তিক কাজ সংক্রান্ত বিভিন্ন ধরনের আর্টিকেল।

তাই অবশ্যই সে সকল আর্টিকেলগুলো করুন এবং অনলাইনে নিজেদের ক্যারিয়ার গঠন করুন।

এছাড়া আমাদের ওয়েব সাইটের সকল তথ্য গুলো সবার আগে পেতে ফেসবুক পেইজে জয়েন করুন। 

Leave a Comment

4 − 3 =