জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই পদ্ধতি ২০২২

জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করার নিয়ম সম্পর্কে জানেন কি? আজকে আমরা জানার চেষ্টা করবো কিভাবে অনলাইন থেকে ভোটার আইডি কার্ড বা এনাইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করা যায়। ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য সম্পাদনা এবং রিইস্যু করা নিয়ে জানতে চেষ্টা করবো।

একই সাথে আমরা জানতে চেষ্টা করবো কি ভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করা যায়। কিভাবে ডাউনলোড করে প্রিন্ট করলে একদম আসল এনআইডি কার্ড হিসেবে ব্যবহার করা যাবে সবসময় সব ক্ষেত্রে।

এবং কারা কারা পারবেন তাদের ভোটার আইডি কার্ড যাচাই – National Identity Card Verification করে ডাউনলোড করতে।

জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই/verification কপি একদম সহজ। আপনার হাতের স্মার্ট ফোনটি দিয়েই আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ড যাচাই বা দেখতে পাবেন। একই সাথে ডাউনলোড করতে পারবেন। 

নির্বাচন কমিশন সর্বশেষ যে পদ্ধতিতে জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাইয়ের পদ্ধতি খোলা রেখেছেন সেই পদ্ধতিতে আপনি আপনার এনআইডি কার্ড যাচাই করতে পারবেন। পারবেন আপনার দেওয়া তথ্য সম্পাদনা বা এডিট করতে এবং ডাউনলোড করতে পারবেন। 

Contents hide

অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই পদ্ধতি দেখা যাক

অনলাইনে ঘরে বসে জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করতে প্রথমে আপনাকে নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। এই ওয়েবসাইট দেশের নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বে দেশের সাধারন জনগণকে জাতীয় পরিচয়পত্র বিষয়ে তথ্য আদান প্রদান করে থাকে।

ওয়েবসাইটে প্রবেশের পরে নিচের ছবির মতো পেজ দেখতে পাবেন। 

আপনার এনআইডি কার্ড হয়েছে বা আপনি এনআইডি কার্ডের জন্য ছবি তুলেছেন শুধু মাত্র এমন ব্যক্তিরাই তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করতে পারবে।

এই পেজে আসার পরে রেজিস্ট্রেশন নামে একটি অপশন দেখতে পাবেন। দেখতে পাবেন নতুন ভোটার হওয়ার জন্য আবেদনের অপশন। এবং নিচে লগইন অপশন দেখতে পাবেন। সহজে বোঝার জন্য নিচে বড় করে যে তিনটি বিষয় দেখবেন তা তালিকা করে দেওয়া হলো 

রেজিস্ট্রেশন – লগইন – নতুন আবেদন 

আমরা অনেকেই জানি না যে অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করা যায় এখন খুব সহজে।

আজ জানবো জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই পদ্ধতি এবং সাময়িক জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই সাময়িক জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই সম্পর্কে। 

প্রথমেই যাদের আগে রেজিস্ট্রেশন করা নাই তারা কিভাবে এনআইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্র কিভাবে যাচাই করতে পারবেন এবং ডাউনলোড করতে পারবেন।

প্রথমেই নির্ধারিত ওয়েবসাইটের লিংকে ক্লিক করে নিচের এমন একটি পেজ দেখতে পাবেন।  

জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই
জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই

উপরের ছবিটিতে হলুদ মার্ক করার জায়গায় ‘রেজিস্ট্রেশন করুন’ অপশনে ক্লিক করুন।

এর পরে  নিচের ছবিটির মতো রেজিস্ট্রেশন করার জন্য একটি ফর্মের মতো একটি পেজ আসবে। 

জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করতে একাউন্ট তৈরি
জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করতে একাউন্ট তৈরি

এখান উপরের ছবির মতো দেখতে যে পেজটি আপনি দেখতে পাচ্ছেন এখানে প্রথমে জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার বসাতে হবে।

এরপরে জন্ম তারিখের প্রথমে দিন এর পরে মাস এরপরে বছর বসাতে হবে। এর পর নিচে ক্যাপচা সঠিক ভাবে দেখে নির্ধারিত জায়গায় বসাতে হবে। 

এবার আরেকবার জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার এবং জন্ম তারিখ এবং ক্যাপচা সঠিক ভাবে পূরণ হয়েছে কি-না তা সঠিক ভাবে মিলিয়ে নেই।

এর পড়ে নিচে ‘সাবমিট’ বাটনে ক্লিক করুন।

অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করার পদ্দতিতে এখন নিচের ছবির মতো আপনি একটি পেজ দেখতে পাবেন। 

অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই
অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই

উপরের পেজটি দেখতে পাচ্ছেন। এবার আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা সঠিক ভাবে সিলেক্ট করুন।

এখানে জাতীয় পরিচয়পত্রে যে ঠিকানা দিছিলেন সেটা নিশ্চিত করুন। 

অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করার নিয়ম ২০২২

এবার নিচে কালো কালির মধ্যে ‘পরবর্তী’ বাটনে ক্লিক করুন। এবার নিচের ছবিটির মতো একটি পেজ দেখতে পারছেন।

রেজিস্ট্রেশন গেলে এনআইডি নাম্বার
রেজিস্ট্রেশন গেলে এনআইডি নাম্বার

যে মোবাইল নাম্বারটি দেখা যাচ্ছে সেটি যদি আপনার সচল নাম্বার থাকে তাহলে ‘বার্তা পাঠান’ বাটনে ক্লিক করুন।

আর যদি অন্য নাম্বারে নিশ্চিত কোডটি পেতে চান তাহলে ‘মোবাইল পরিবর্তন’ বাটনে ক্লিক করুন।

এবার আপনি নিচের ছবির মতো একটি পেজ দেখতে পাবেন। যেখানে আপনার মোবাইলে প্রেরণ করা ৬ সংখ্যার একটি কোড বসাতে হবে। এক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো, মোবাইলে এসএমএস আসতে কিছু সময়ের দরকার হতে পারে, তবে নেট ভালো থাকলে সাথে সাথেই চলে আসে।

এস এম এসের মাধ্যমে কোডটি না আশা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করণ

উপরের ছবিতে যেখানে একটি নমুনা ৬ সংখ্যার কোড বসানো হয়েছে। একই জায়গায় খালি ঘরে আপনার মোবাইলে আসা ৬ সংখ্যার কোডটি বসান। এবার নিচে কালো কালিতে ’বহাল’ বাটনে ক্লিক করুন। ব্যাস এবার আপনাকে মূল কাজটুকু করতে হবে। এটুকু করার পড়ে নিচের ছবির মতো একটি পেজ দেখতে পাবেন যেখানে স্টেপ বাই স্টেপ কিছু নির্দেশনা দেওয়া থাকবে। 

মোবাইলে NID Wallet এপ্লিকেশনটি ইন্সটল
মোবাইলে NID Wallet এপ্লিকেশনটি ইন্সটল

এবার উপরের ছবিতে দেখতে পাওয়া পেজের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রথমে আপনার মোবাইলে NID Wallet এপ্লিকেশনটি ইন্সটল করতে হবে। এটি আপনি আগেও করে রাখতে পারেন। এরপর আপনার মোবাইল থেকে উপরের ছবির মতো দেখতে পাওয়া QR টি স্কান করতে হবে। এর পড়ে এপ্লিকেশনটি থেকে অটোমেটিক ক্যামেরা ওপেন হবে যেখানে নির্দেশনা অনুযায়ী মুখমণ্ডল ঘুরিয়ে ছবি দিতে হবে।

ছবি তোলার সময় স্ক্রিনের নির্দেশনা মেনে তুলতে হবে

আপনার হয়ে রেজিস্ট্রেশন গেলে এনআইডি নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে লগইন করে নিম্মক্ত নিয়মানুযায়ী আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করা যাবে।

এবার ডাউনলোড করা যাবে মুহূর্তের মধ্যে। 

 নতুন রেজিস্ট্রেশন করে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই প্রক্রিয়া শেখা হয়ে গেলো। এবার দেখা যাক আগেই যাদের রেজিস্ট্রেশন করা আছে বা উপরের স্টেপ অনুযায়ী যারা রেজিস্ট্রেশন করলেন তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র কিভাবে বের করে ডাউনলোড করা যায়।  

ইতিমধ্যে কি আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা ইউজারনেম দিয়ে পাসওয়ার্ড দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা আছে? যদি থাকে তাহলে আপনার জন্য লগইন অপশন নির্ধারিত বলা যায়।তবে নতুন করেও রেজিস্ট্রেশন করা যায় যা না করাই ভালো।

এক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো, পাসওয়ার্ড ভুলে গেলেও কোনো সমস্যা নাই।

লগইন বাটনের পাশে ‘পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে’ অপশনে ক্লিকের মাধ্যমে আপনি আপনার আগেই করা রেজিস্ট্রেশন পাসওয়ার্ড রিসেট করতে পারবেন।

এবার দেখে নেওয়া যাক যাদের আগেই রেজিস্ট্রেশন করা আছে তাদের ক্ষেত্রে যেভাবে জাতীয় পরিচয় পত্র যেভাবে যাচাই বা বের করতে হয় 

রেজিস্ট্রেশন আগে করা আছে যেহেতু সেহেতু লগইন করুন অপশনের প্রথম ঘরে ‘আপনার যদি অনলাইন একাউন্ট থাকে তাহলে এখান থেকে ‘লগইন করুন’  এই অপশনের প্রথম ঘরে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার অথবা ইউজারনেম লিখুন। 

এক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই এনআইডি বা ভোটার নাম্বার ব্যবহার করা হয়ে থাকে সাধারণত। এবার পাসওয়ার্ড লেখা ঘরে পাসওয়ার্ড বসান।

পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে যেকনো একটি পাসওয়ার্ড লিখে দিন।হতে পারে আপনার নাম।

এরপর নিচের ঘরের হালকা করে লেখা ক্যাপচা সঠিক ঘরে বসান।

ক্যাপচা বসানোর ক্ষেত্রে কোনোরকম তাড়াহুড়ো করবেন না, যাতে ভুল না হয়।

এবার আর একবার এনআইডি নাম্বাআর এবং ক্যাপচা চেক দিয়ে নেন ভুল আছে কি না।

এখানে একদম নিচে কালো কালির মধ্যে ‘লগইন’ লেখা বাটনে ক্লিক করুন। 

জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার
জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার

এইবার আপনার তথ্য সঠিক হলে অন্য একটি নতুন পেজে নিয়ে যাবে।

এখানে বলে রাখা ভালো, আপনার পাসওয়ার্ড ভুল হলে বা ভুল গেলে বা সঠিক না থাকলে ‘পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে’ অপশনে ক্লিক করলে আপনার মোবাইল নাম্বারটি দেখাবে। তার উপরে বহাল লেখা জায়গায় ক্লিক করলে আপনার মোবাইলে একটি ৬ সংখ্যার কোড যাবে সেই কোড বসিয়ে নতুন পাসওয়ার্ড সেট করে নিতে হবে।

এ প্রক্রিয়া একদম সহজ যা আপনি নিজেই পারবেন খুব সহজেই। 

জাতীয় পরিচয় পত্র দেখতে
জাতীয় পরিচয় পত্র দেখতে

উপরের ছবিটির মতো আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র দেখতে পাচ্ছেন। এবার আপনার বিস্তারিত তথ্য দেখতে পাবেন ‘বিস্তারিত প্রোফাইল’ বাটনে ক্লিক করে।

এভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই স্টেপ বাই স্টেপ এগিয়ে যেতে থাকুন এই নিয়মে

অথবা ডান পাশে প্রোফাইলে ক্লিক করলে সব ধরনের  তথ্য দেখতে পাবেন। 

আপনি যদি কোনো তথ্য আপডেট করতে চান তাহলে ‘এডিট’ অপশনে ক্লিক করতে হবে।

সেখান থেকে এডিট করে সেভ করে দিলেই এডিট সফল হয়ে যাবে। 

আপনার এনআইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্র যদি হারিয়ে যায় তাহলে এখান থেকে দেখতে পাবেন ‘রিইস্যু’ নামে একটি অপশন।

এখানে ক্লিক করে যাবতীয় তথ্য দিয়ে পুনরায় আপনার এনআইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে পারেন। 

আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করতে চাইলে পেজটির দান পাশের ‘ডাউনলোড’ অপশনে ক্লিক করলেই আপনার এনআইডি এর পিডিএফ ডাউনলোড হয়ে যাবে।

যা পরবর্তীতে আপনি প্রিন্ট করে বের করে নিতে পারবেন। 

আজকের সম্পূর্ণ আর্টিকেল জুড়ে চেষ্টা করেছি কিভাবে অনলাইনের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করা যায়, ডাউনলোড করা যায়।

এর মাধ্যমে নতুন ভোটার হিসেবে আবেদন কিভাবে করবেন তাও জানতে পারলেন। 

আরও পড়ুনঃ জন্ম সনদ যাচাই করণ পদ্ধতি 2022

তো শেখা হয়ে গেলো কিভাবে অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই এবং ডাউনলোড করা যায়।

আশা করি এখন আর এ বিষয়ে কোনো ভুল ধারনা বা অজ্ঞতা থাকলো না। 

আরও পড়ুনঃ

অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করার নিয়ম কি?

নিজেই নিজের জাতীয় পরিচয় পত্র অনলাইনে যাচাই করে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে একটি একাউন্ট তৈরি করতে হবে। এই পদ্ধতিতে আপনি আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই করার পাশাপাশি নিজেই জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করা যায় কি?

জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করা সম্ভব নয়। কেননা বাংলাদেশ সরকার জাতীয় পরিচয় পত্র বা ভোটার আইডি কার্ড সেক্টরটিকে সম্পূর্ণ ভিন্ন রেখেছে জাতীয় জন্ম নিবন্ধন থেকে।

উপসংহারঃ

আশা করি আপনি জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। এরপরেও ভোটার আইডি কার্ড সম্পর্কে আপনার আরও কিছু জানতে বা বুঝতে না পারলে কমেন্ট করতে ভুলবেন না।

নিত্যনতুন আর্টিকেল পেতে চোখ রাখুন আমাদের ওয়েবসাইটে এবং কানেক্ট থাকুন ফেসবুক পেজে।

2 thoughts on “জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই পদ্ধতি ২০২২”

Leave a Comment

seven + twelve =