সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত | সুরা বাকারার ফজিলত

সুপ্রিয় পাঠকবৃন্দ সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত পড়ার জন্য আপনারা অনেকেই গুগলের মাধ্যমে সার্চ করেছেন। আজকের এই আর্টিকেলের বাধ্য হয়ে সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত নিয়ে।

মূলত আপনারা অনেকেই এই সূরার আয়াত গুলো জানার জন্য নিজেদের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত এবং এই আয়াতগুলোর ফজিলত বাংলা উচ্চারণ সকল কিছু বিস্তারিত ভাবে আপনাদের সামনে উল্লেখ করব।

তাই আজকের এই আর্টিকেলটি অবশ্যই আপনারা শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ুন এবং সূরা বাকারার শেষ দুই আয়াত গুলো পড়ুন।

সূরা বাকারার শেষ দুই আয়াত

সূরা বাকারার শেষ দুই আয়াত
শেষ দুই আয়াত

আপনাদের উদ্দেশ্যে সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত প্রদান করা হলো-

ءَامَنَ ٱلرَّسُولُ بِمَآ أُنزِلَ إِلَيْهِ مِن رَّبِّهِۦ وَٱلْمُؤْمِنُونَ كُلٌّ ءَامَنَ بِٱللَّهِ وَمَلَٰٓئِكَتِهِۦ وَكُتُبِهِۦ وَرُسُلِهِۦ لَا نُفَرِّقُ بَيْنَ أَحَدٍ مِّن رُّسُلِهِۦ وَقَالُوا۟ سَمِعْنَا وَأَطَعْنَا غُفْرَانَكَ رَبَّنَا وَإِلَيْكَ ٱلْمَصِيرُ

উচ্চারণঃ আ-মানাররাছূলু বিমাউনঝিলা ইলাইহি মির রাব্বিহী ওয়াল মু’মিনূনা কুল্লুন আ-মানা বিল্লাহি ওয়া মালাইকাতিহী ওয়া কুতুবিহী ওয়া রুছুলিহী লা-নুফাররিকুবাইনা আহাদিম মির রুছুলিহী ওয়া কা-লূ ছামি‘না ওয়াআতা‘না গুফরা-নাকা রাব্বানা-ওয়া ইলাইকাল মাসীর।

অর্থঃ রসূল বিশ্বাস রাখেন ঐ সমস্ত বিষয় সম্পর্কে যা তাঁর পালনকর্তার পক্ষ থেকে তাঁর কাছে অবতীর্ণ হয়েছে এবং মুসলমানরাও সবাই বিশ্বাস রাখে আল্লাহর প্রতি, তাঁর ফেরেশতাদের প্রতি, তাঁর গ্রন্থসমুহের প্রতি এবং তাঁর পয়গম্বরগণের প্রতি।

তারা বলে আমরা তাঁর পয়গম্বরদের মধ্যে কোন তারতম্য করিনা। তারা বলে, আমরা শুনেছি এবং কবুল করেছি।

আমরা তোমার ক্ষমা চাই, হে আমাদের পালনকর্তা। তোমারই দিকে প্রত্যাবর্তন করতে হবে।

لَا يُكَلِّفُ ٱللَّهُ نَفْسًا إِلَّا وُسْعَهَا لَهَا مَا كَسَبَتْ وَعَلَيْهَا مَا ٱكْتَسَبَتْ رَبَّنَا لَا تُؤَاخِذْنَآ إِن نَّسِينَآ أَوْ أَخْطَأْنَا رَبَّنَا وَلَا تَحْمِلْ عَلَيْنَآ إِصْرًا كَمَا حَمَلْتَهُۥ عَلَى ٱلَّذِينَ مِن قَبْلِنَا رَبَّنَا وَلَا تُحَمِّلْنَا مَا لَا طَاقَةَ لَنَا بِهِۦ وَٱعْفُ عَنَّا وَٱغْفِرْ لَنَا وَٱرْحَمْنَآ أَنتَ مَوْلَىٰنَا فَٱنصُرْنَا عَلَى ٱلْقَوْمِ ٱلْكَٰفِرِينَ

উচ্চারণঃ লা-ইউকালিলফুল্লা-হু নাফছান ইল্লা-উছ‘আহা-লাহা-মা কাছাবাত ওয়া ‘আলাইহা-মাকতাছাবাত রাব্বানা-লা-তুআ-খিযনা ইন নাছীনা-আও আখতা’না-রাব্বানা ওয়ালা-তাহমিল ‘আলাইনা-ইসরান কামা-হামালতাহূ আলাল্লাযীনা মিন কাবলিনা-রাব্বানা-ওয়ালা তুহাম্মিলনা-মা-লা-তা-কাতা লানা-বিহী ওয়া‘ফু‘আন্না-ওয়াগফিরলানা-ওয়ারহামনা-আনতা মাওলা-না-ফানসুরনা-‘আলাল কাওমিল কা-ফিরীন।

অর্থঃ আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যাতীত কোন কাজের ভার দেন না, সে তাই পায় যা সে উপার্জন করে এবং তাই তার উপর বর্তায় যা সে করে।

হে আমাদের পালনকর্তা, যদি আমরা ভুলে যাই কিংবা ভুল করি, তবে আমাদেরকে অপরাধী করো না।

হে আমাদের পালনকর্তা! এবং আমাদের উপর এমন দায়িত্ব অর্পণ করো না, যেমন আমাদের পূর্ববর্তীদের উপর অর্পণ করেছ, হে আমাদের প্রভূ! এবং আমাদের দ্বারা ঐ বোঝা বহন করিও না, যা বহন করার শক্তি আমাদের নাই। আমাদের পাপ মোচন কর।

আমাদেরকে ক্ষমা কর এবং আমাদের প্রতি দয়া কর।

তুমিই আমাদের প্রভু। সুতরাং কাফের সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে আমাদের কে সাহায্যে কর।

নামাজের ফরজ কয়টি?

জুম্মার নামাজ কয় রাকাত?

সুরা বাকারার ফজিলত | সূরা বাকারার শেষ দুই আয়াত

পবিত্র আল-কুরআনের দ্বিতীয় সূরাটি হচ্ছে সূরা বাকারা।

এই সূরার মধ্যে শেষ দুটি আয়াত রয়েছে বিশেষ ফজিলত এবং তাৎপর্য।

নিয়মিত যদি কোন মুসলমান বান্দা এর আমল করে তাহলে নানান ধরনের বিপদ আপদ থেকে সে ব্যক্তি রক্ষা পায়।

এই সূরা পাঠ এর ফলে জান্নাতের পথ সুগম হবে। 

রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে এক ব্যক্তি জিজ্ঞেস করেছিলেন, হে আল্লাহর রাসুল (সা.), কোরআনের কোন সুরা সবচেয়ে বেশি মর্যাদাবান? তিনি বললেন, সুরা এখলাস।

এরপর আবার বললেন, কোরআনের কোন আয়াতটি মর্যাদাবান? তিনি বললেন, আয়াতুল কুরসি।

এরপর আবার বলেন, হে আল্লাহর নবী, আপনি কোন আয়াতকে পছন্দ করেন, যা দ্বারা আপনার ও আপনার উম্মত লাভবান হবে।

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) বললেন, সুরা বাকারার ২৮৫-২৮৬ নম্বর শেষ দুটি আয়াত।

আরও পড়ুনঃ

ফজরের নামাজ কয় রাকাত

যোহরের নামাজ কয় রাকাত

মাগরিবের নামাজ কয় রাকাত?

সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত FAQS

সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত?

ءَامَنَ ٱلرَّسُولُ بِمَآ أُنزِلَ إِلَيْهِ مِن رَّبِّهِۦ وَٱلْمُؤْمِنُونَ كُلٌّ ءَامَنَ بِٱللَّهِ وَمَلَٰٓئِكَتِهِۦ وَكُتُبِهِۦ وَرُسُلِهِۦ لَا نُفَرِّقُ بَيْنَ أَحَدٍ مِّن رُّسُلِهِۦ وَقَالُوا۟ سَمِعْنَا وَأَطَعْنَا غُفْرَانَكَ رَبَّنَا وَإِلَيْكَ ٱلْمَصِيرُ

لَا يُكَلِّفُ ٱللَّهُ نَفْسًا إِلَّا وُسْعَهَا لَهَا مَا كَسَبَتْ وَعَلَيْهَا مَا ٱكْتَسَبَتْ رَبَّنَا لَا تُؤَاخِذْنَآ إِن نَّسِينَآ أَوْ أَخْطَأْنَا رَبَّنَا وَلَا تَحْمِلْ عَلَيْنَآ إِصْرًا كَمَا حَمَلْتَهُۥ عَلَى ٱلَّذِينَ مِن قَبْلِنَا رَبَّنَا وَلَا تُحَمِّلْنَا مَا لَا طَاقَةَ لَنَا بِهِۦ وَٱعْفُ عَنَّا وَٱغْفِرْ لَنَا وَٱرْحَمْنَآ أَنتَ مَوْلَىٰنَا فَٱنصُرْنَا عَلَى ٱلْقَوْمِ ٱلْكَٰفِرِينَ

উপসংহার 

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই আর্টিকেলের সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত সম্পর্কে আপনাদের জানানো হয়েছে।

আশা করি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের ভাল লেগেছে এবং আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনারা সূরা বাকারা সম্পর্কে জানতে পেরেছেন।

যদি আপনাদের এ বিষয়ে আর কোন প্রশ্ন অথবা মতামত থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন।

অনলাইন থেকে ঘরে বসে টাকা আয় এবং বিভিন্ন ধরনের অনলাইন ইনকাম সম্পর্কিত আর্টিকেলগুলো পড়তে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

এর পাশাপাশি নিত্যনতুন সকল বিষয়ে জানতে আমাদের ওয়েবসাইট এর আর্টিকেলগুলো করুন।

আমাদের ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন এবং চোখ রাখুন আমাদের ফেসবুক পেজে। 

Leave a Comment

one × three =