সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয় । How soybean oil is made?

সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয় এটি এতদিন না জানলেও এই সময়ে মানুষের এটির জানার আগ্রহের শেষ নেই। কারণ এই মুহূর্তে সয়াবিন তেল মানে স্বর্ণের মতো দামী। এছাড়া সয়াবিন তেল রান্না ঘরে পৌছায় নি এমন ঘরের সংখ্যা একটিও নেই। 

আজকে আমরা জানবো কিভাবে সয়াবিন তেল তৈরি হয়। কেন এত জনপ্রিয় এই তেল? কিভাবে এই তেল সংগ্রহ করা হয়। কিভাবে সয়াবিন তেল এত দামী তেল হিসেবে রুপ নিল। 

প্রাচীন কাল থেকে সয়াবিন তেল ধীরে ধীরে বাঙালির খাদ্যাভ্যাসের অপরিহার্য উপাদান হয়ে ওঠায় এখন পর্যন্ত এই তেলের বিকল্প হয়ে উঠতে পারেনি কোনো রান্নার তেল।

যেখানে স্বাধীনতার আগ পর্যন্ত রান্নার প্রধান তেল ছিল শর্ষের তেল।

এ দেশে কখন থেকে সয়াবিন তেলের আমদানি এবং ব্যবহার শুরু হয় তার সঠিক তথ্য খুজে পাওয়া যায়নি। তবে জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী জানা যায় স্বাধীনতার কিছুদিন আগে থেকে দেশে সয়াবিন তেল প্রচলন শুরু হয়। 

১৯৬১ সালে দেশে সয়াবিন তেলের আমদানি করার পরিমাণ ছিল ১৪ হাজার ২৩০ টন। সে সময় ভোজ্যতেলের মধ্যে শর্ষের ব্যবহার ছিল শতকরা ৮০ শতাংশ। দেশ স্বাধীন হওয়ার এক বছরের মাথায় সয়াবিন আমদানিতে আবারো ভাটা ধরে। এরপর কখনো সয়াবিন, কখনো শর্ষের তেল ছিল ভোজ্যতেলের বাজারে অংশীদারত্ব লড়াইয়ে। 

সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয়? – How soybean oil is made?

সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয়
সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয়

সয়াবিনের বীজ থেকে সয়াবিন তেল তৈরি হয়। বিশ্বে হাতে ধরা মাত্র কয়েকটি দেশে সয়াবিন বীজ ফলে।

বর্তমানে ১৫ টি দেশে বিশ্বের মোট ৯৮ ভাগ সয়াবিন বীজ উৎপন্ন হয়। এর মধ্যে সেরা চারটি দেশ হলো ব্রাজিল, যুক্তরাষ্ট্র, আর্জেন্টিনা এবং চীন।

সয়াবিনের বীজ মাড়াই করে তেল উতপাদন এবং রপ্তানিতেও শীর্ষে এই চারটি দেশের অবস্থান। আমাদের দেশ বাংলাদেশেও এই সয়াবিন বীজ উৎপন্ন হয়। কিন্তু পরিমাণে খুব কম উৎপন্ন হয়। 

প্রত্যেকটি রান্না ঘরে সয়াবিন তেল স্থায়ী হওয়ার পরে সয়াবিন বীজ সংগ্রহ এবং সয়াবিন তেল উৎপাদনে বিনিয়োগ নিয়ে দ্বিতীয় বার ভাবতে হয়নি সয়াবিন ব্যবসায়ীদের। 

যার লক্ষ্যে মাত্র দেড় দশক আগেই সয়াবিন তেল রিফাইন করার উদ্দেশ্যে  সয়াবিন বীজ মাড়াইয়ের কারখানায় টাকা বিনিওগ করেন দেশের প্রথম শাড়ীর উদ্যোক্তারা। 

ব্লগ লিখে আয় করার উপায় | ঘরে বসে বাংলা লিখে টাকা আয় করুন! বিকাশ পেমেন্ট

জনপ্রিয়তা এবং উপকারিতার কারণে সয়াবিন তেল অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও মানুষের নিত্য ব্যবহার্য খাবারের অন্যতম অংশ হয়ে গেছে। চিন বিশ্বের সব থেকে বেশি সয়াবিন তেল ব্যবহার্য দেশ।

সয়াবিন তেল ব্যবহারের দিক থেকে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রাজিল।

ব্যবহারের দিক থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে বাদ দিলে সয়াবিন ব্যবহারের দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান সপ্তম। এমন তথ্য দিয়েছে কৃষি সংস্থা, যুক্তরাষ্ট্র। 

বাংলাদেশে ব্রতমানে নামকরা বেশ কিছু কোম্পানি বিদেশ থেকে অপোরিশধিত তেল এনে নিজস্ব কারখানায় পরিশোধিত করে বোতল জাত করে বাজার জাত করছে।

কোনো কোনো কোম্পানি আবার সরাসরি সয়াবিন বীজ সংগ্রহ করে কারখানায় তেল উতপাদন করে বাজার জাত করছে। 

বাংলাদেশে এমন কয়কেটি নামি কোম্পানির মধ্যে অন্যতম বসুন্ধরা, ফ্রেশ, জমুনা, রুপচাদা অন্যতম। 

আজকের সয়াবিন তেলের দাম 2022

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের বাজারে ভোজ্যতেল সয়াবিনের বাজার অস্থিতিশীল রয়েছে। সঠিক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার কারণে দেশের সাধারণ জনগণ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে ভোজ্যতেল ক্রয় করতে গিয়ে।

সরকার বাংলাদেশ খাদ্য অধিদপ্তরের আওতাধীন ভোক্তা অধিদপ্তরের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে সয়াবিন তেলের মূল্য স্থিতিশীল রাখার চেষ্টা করেও সাফল্য পাচ্ছে না।

মজুতদার ও অসাধু ব্যবসায়ীদের কারণে সাধারণ জনগণ ব্যাপক সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সয়াবিন তেল ক্রয়ে।

১ লিটার সয়াবিন তেলের দাম ২০২২

বর্তমানে বাংলাদেশের প্রতি লিটার সয়াবিন তেল 210 টাকায় খোলাবাজারে বিক্রি হচ্ছে।

অর্থাৎ ১ লিটার সয়াবিন তেলের দাম ২০২২ হচ্ছে ২১০ টাকা।

আড়ও পড়ুনঃ

Robi Minute Check Code BD 2022 | রবি মিনিট চেক কোড

ঘরে বসে ডাক্তারের পরামর্শ । অনলাইনে ডাক্তারের পরামর্শ 

Passport Medical Report Check Online Bangladesh

কোথা থেকে কিভাবে দেশে আসছে সয়াবিন তেল? 

জনপ্রিয়তায় শীর্ষে থাকা এই সয়াবিন তেল অপরিশোধিত অবস্থায় দেশে আসছে মূলত তিনটি দেশ থেকে। আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল ও প্যারাগুয়ের ওপর নির্ভরশীল বাংলাদেশের সয়াবিনের বাজার।

এছাড়াও দেশের চাহিদা পুরনে অন্যান্য দেশ থেকেও বিপুল পরিমাণে সয়াবিন তেল আসছে। যা বাংলাদেশ সরকার সরবরাহ করছে। 

ফুটবলে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মতো লড়াই আছে সয়াবিন তেলের বাজারের দখলে।

তুলনামূলক লড়াই থাকলেও ব্রাজিলের থেকে আর্জেন্টিনা বাংলাদেশে সয়াবিন তেল রপ্তানিতে এগিয়ে আছে। 

সয়াবিন বীজ উৎপাদন ও তার গুনাবলী

আমরা সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয় তা জানলাম।

এখন সয়াবিন তেল মানব শরীরে অন্যান্য তেলের মতো বিশেষ কিছু উপকার এবং অপকার করে থাকে জানবো তা।

তবে অপকারের থেকে মানব শরীরে উপকারের সংখ্যা কোনো অংশে কম নয়।

আমরা এখন জানার চেষ্টা করবো আমাদের নিত্য দিনের রান্নার সঙ্গী সয়াবিন তেলের উপকারিতা সম্পর্কে।  

সয়াবিন তেলে ভিটামিন ই অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপস্থিত। যা মানব শরীরে ভিটামিন ই অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে সবচেয়ে উপকারী কাজ করে।

সয়াবিন মানুষের শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখে।

একজন মানুষের শরীরে এই কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যা সয়াবিন তেল মানব শরীরে উপস্থিত হয়ে করে থাকে।

মানব শরীরের হাড়, চোখ এবং ত্বকের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় কাজ করে।

যেমনঃ  শরীরের হার শক্ত করতে সয়াবিন তেল অত্যন্ত ভুমিকা রাখে।

চোখের ফিটনেস রক্ষায় সয়াবিন তেলের গুরুত্ত এক কথায় অসাধারণ।

আড়ও পড়ুনঃ

 

মানব শরীরে সয়াবিন তেলের অপকারিতা কি? 

সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয় তা থেকে শুরু করা সয়াবিন তেলের উপকারিতাও জানলাম।

এবার জেনে নেওয়া যাক সব কিছুতে যেমন কিছু অপকারি দিক থাকে তেমনই সয়াবিন তেলের অপকারি দিক সম্পর্কে। 

আমরা নিত্য দিনে যা কিছুই ব্যবহার করি না কেন সবকিছুরই একটা না একটা অপকারি দিক থাকবেই।

ঠিক একই ভাবে আমাদের নিত্য দিনের রান্নার সঙ্গী সয়াবিন তেল ব্যবহারেও কিছু অপকারিতা রয়েছে। 

জেনে নেওয়া যাক সয়াবিন তেলের অন্যতম অপকারি দিকগুলি। 

  • অতিরিক্ত সয়াবিন তেল গ্রহনে মানব শরীরে ক্যানসার সৃষ্টি হতে পারে।
  • ডায়াবেটিস এমনকি হৃদ্রোগের মতো মারাত্মক রোগের ঝুঁকি বাড়ায় এই সয়াবিন তেলের অতিরিক্ত ব্যবহার।

যেহেতু কোন কিছুই অতিরিক্ত ব্যবহার ভালো না।

সেরকমই অতিরিক্ত সয়াবিন তেল ব্যবহার থেকে দূরে থাকতে হবে।

সয়াবিন তেলের ব্যবহারে এটি মানব শরীরে অ্যান্টি-নিউট্রিয়েন্টস হিসেবে কাজ করে। যা শরীরের জন্য বেশ ঝুঁকিপূর্ণ।

এছাড়াও বাজারে বিভিন্ন কোম্পানি বের হওয়ায় এবং খোলাভাবে সয়াবিন তেল সরবরাহ করায় ভেজাল তেলের আধিক্য অনেক বেশি।

যা থেকে আমাদের বেছে নিতে হবে সবথেকে অরজিনাল এবং মান সম্পন্ন সয়াবিন।

এজন্য আপনি বোতলজাত তেল ব্যাবহার করবেন, তবে অবশ্যই বিভিন্ন ভালো নামের ব্রান্ডের তেল ব্যবহার করতে পারেন। 

সর্বোপরি, সয়াবিন তেলের ভেজাল এবং ভালো মান্সম্পন্ন তেল নিজেদের বুঝে কিনতে চেষ্টা করতে হবে এবং বাজার নিন্ত্রনের জন্য আইনের লোকদের আরও সচেতন অবস্থানে থাকা জরুরি।

আড়ও পড়ুনঃ

বঙ্গবন্ধুর প্রথম জীবনীকার কে? Who is the first biographer of Bangabandhu?

স্কলারশিপ কিভাবে পাওয়া যায় । বিদেশে স্কলারশিপ পাওয়ার যোগ্যতা

সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয় FAQS

সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয়?

সয়াবিনের বীজ থেকে সয়াবিন তেল তৈরি হয়। বিশ্বে হাতে ধরা মাত্র কয়েকটি দেশে সয়াবিন গাছ থেকে বীজ উৎপাদন হয়ে থাকে, যা সমগ্র বিশ্বের মোট উৎপাদনের ৮০% ভাগ।

বাংলাদেশ কোন দেশ থেকে সয়াবিন তেল আমদানি করে থাকে?

অপরিশোধিত অবস্থায় সয়াবিন তেল দেশে আসছে মূলত তিনটি দেশ থেকে, যে দেশ গুলি হচ্ছে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল ও প্যারাগুয়ে। এই দেশ গুলি থেকে আমদানির উপর নির্ভরশীল বাংলাদেশের সয়াবিনের বাজার।

সয়াবিন তেলের উপকারিতা কি?

খাবার তেল হিসাবে সয়াবিন মানুষের শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখে। মানব শরীরের হাড়, চোখ এবং ত্বকের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় কাজ করে।

সয়াবিন তেলের অপকারিতা কি?

যেকোন জিনিশের অতিরিক্ত ব্যাবহার মানব শরীরের জন্য ক্ষতিকর। অতিরিক্ত সয়াবিন তেল গ্রহনে মানব শরীরে ক্যানসার সৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে ডায়াবেটিস এমনকি হৃদ্রোগের মতো মারাত্মক রোগের ঝুঁকি বাড়ায় এই সয়াবিন তেলের অতিরিক্ত ব্যবহার।

শেষ কথা

আজকে আমরা জানলাম সয়াবিন তেল কিভাবে তৈরি হয়, সয়াবিন তেলের উপাদান সমূহ, কোন দেশ থেকে সয়াবিন তেল আমদানি করা হয়ে থাকে।

এবং আমরা জানতে চেষ্টা করেছি সয়াবিন তেলের উপকারিতা এবং অপকারিতা। 

আশা করছি, আজকের পোস্ট সম্পূর্ণ পড়লে এ বিষয়ে আর কিছু জানতে বাকি থাকবেনা, থাকবেনা এই বিষয়ে অজ্ঞতা। 

নিত্য নতুন এরকম আরও অনেক লেখা পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট এবং কানেক্ট থাকুন আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে। 

Leave a Comment

2 × two =