অনলাইন থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় ২০২৩

বর্তমান সময়ে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সম্পর্কে অনেকেই গুগল থেকে জানতে চান। এই নিবন্ধের মাধ্যমে আমরা আপনাদের জানাতে চলেছি প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সমূহ কি কি?

তার মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা জানতে চান অনলাইন থেকে প্রতিমাসে ২০ হাজার টাকা কিভাবে ইনকাম করা যায়, আমাদের সাথে থাকুন এই ব্লগের মাধ্যমে আপনি ২০ হাজার টাকা প্রতি মাসে ইনকাম করার সেরা উপায় গুলোর সম্পর্কে জানতে পারবেন।

আপনি অনলাইনে অথবা অফলাইনে যে যেকোনো একটি পদ্ধতি অনুসরণ করে খুব সহজেই প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এজন্য আপনাকে ফুল ডেডিকেশন নিয়ে কাজ করতে হবে।

তবে মনে রাখবেন যে কোন উৎস থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য আপনাকে সঠিকভাবে কাজ করে যেতে হবে। সেটা হতে পারে আপনি নিজের ব্যবসা করেন অথবা চাকরি করেন অথবা অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং সার্ভিস বা নিজস্ব কোন সেবা প্রদান করেন।

কারণ পৃথিবীতে যারা প্রচুর টাকা ইনকাম করেছেন তাদের কাছে নিজস্ব স্কিল বা দক্ষতা রয়েছে। এখন আপনি আপনার স্কিল কিভাবে কাজে লাগিয়ে সহজে টাকা ইনকাম করবেন সেই পদ্ধতি সম্পর্কেও আপনাকে জানতে হবে।

আপনি চাকরি করে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারেন, আবার দেখবেন আপনার অফিসেই কাজ করছে এমন একজন ব্যক্তি যার মাসিক বেতন 1 লক্ষ টাকা। এর কারণ হচ্ছে ঐ ব্যক্তি পড়াশোনার পাশাপাশি সে তার কাজে খুবই দক্ষ।

নিজেকে ব্যক্তিজীবনে স্বাচ্ছন্দ এনে দিতে আপনাকে টাকা আয়ের বিকল্প নেই, একটা সময় হয়তোবা টাকার প্রয়োজন শেষ হয়ে যাবে তথাপিও আপনার পার্সোনালিটি ধরে রাখতে আপনাকে টাকা আয় করতেই হবে।

অনলাইনে টাকা ইনকাম করার টিপস

অনলাইন থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় ২০২৩
অনলাইন থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় ২০২৩

বর্তমান সময়ে অনেকেই বিজ্ঞাপন এবং অ্যাপ থেকে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় সম্পর্কে বলে থাকে। কিন্তু সত্যি কথা হল এর বেশিরভাগই scams. বাংলাদেশে বসে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করার অনেক সহজ উপায় রয়েছে তবে বাস্তবতা সম্পূর্ণই ভিন্ন। যদিও এর মধ্যে কিছু উপায়ে রয়েছে যেগুলি বাস্তব জীবনে প্রযোজ্য, অন্যগুলি বইয়ে সবচেয়ে ভালো পড়ানো হয়ে থাকে।

কেউ যদি আপনাকে বলে আপনি বাড়িতে বসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন? কথাটি বলা অনেক সহজ মনে হলেও বাস্তবে তা অনেক কঠিন। এজন্য আপনাকে সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে এবং এই নিবন্ধে আমরা বাংলাদেশে বসে অনলাইনে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করার উপায় সময়ের মধ্যে সেরা উপায় গুলো নিয়ে আলোচনা করব।

যাই হোক সঠিক উপায় অবলম্বন করে এবং নিয়মিত ভাবে টাকা ইনকাম করে যেতে চাইলে অবশ্যই আপনাকে আমাদের দেখানো অনলাইন টাকা ইনকাম করার পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করতে হবে।

আপনারা নিশ্চয়ই ইতিমধ্যে জেনে গেছেন বাংলাদেশে বিভিন্ন অনলাইন গেম খেলে বা অ্যাপ এর মাধ্যমে জুয়া খেলে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করা সবচেয়ে দ্রুত উপায়।

টাকা দ্রুত ইনকাম করার লোভে কখনোই এই অনৈতিক কার্যকলাপে নিজেকে যুক্ত করবেন না এবং নিজের কশ্চাত্ত্বিত অর্থ বা সম্পদ এ পথে ব্যয় করিবেন না।

অনলাইন থেকে সঠিক উপায়ে টাকা ইনকাম করা যায় এবং লোকেরা লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছে আপনিও পারবেন এজন্য আপনাকে কষ্ট করে কোন স্কিল বা দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে আপনাকে যা যা করতে হবে-

অগ্রিম গবেষণা

যারা দ্রুত অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে চায় তাদেরকে টার্গেট করে অনেক কোম্পানি প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে থাকে। তাই আপনি প্রতারক চক্র বা জালিয়াতি কোম্পানি থেকে বাঁচতে এবং যাতে আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট না হয় সেজন্য সঠিক গবেষণা করতে হবে।

সুতরাং কোন কোম্পানিতে কাজ করার পূর্ব ঐ কোম্পানির সম্পর্কে গবেষণা করুন এবং কাজের নিশ্চিতকরণ ছাড়া কখনোই নিজের ব্যক্তিগত তথ্য এবং অর্থ কোন কোম্পানিকে শেয়ার করবেন না।

ডিসকাউন্টে সকল সিমের মিনিট, ইন্টারনেট ও বান্ডেল অফার
ক্রয় করতে DESH OFFER সাইটে ভিজিট করুন।

অনলাইনে কাজের ব্যাপারে ধৈর্য ধারণ করুন

বাস্তব জীবনে আমরা দীর্ঘ সময় পড়ালেখা করার পর ২০ হাজার টাকা বেতনের একটি চাকরি জোগাড় করতে অনেক প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হয়ে থাকি। কিন্তু যখনই আমরা অনলাইনে টাকা ইনকাম করার কথা চিন্তা করি তখনই আমরা ধৈর্য হারা হয়ে যায় এবং দ্রুত টাকা ইনকাম করতে চাই, যা আপনাকে কখনোই করা উচিত নয়।

এজন্য আপনাকে ধৈর্যধারণ করতে হবে, কেননা অনলাইন ইনকাম একটি ধৈর্যের কাজ তাই আপনাকে ধারাবাহিক এবং উৎসাহী থাকতে হবে সব সময়। বিভিন্ন প্লাটফর্মে নিজের সেবা প্রদানের সময় অবশ্যই আপনাকে সর্বদা ধৈর্য ধারণ করতে হবে, কোন ক্লায়েন্টের সাথে ডিল করার সময় অধৈর্য হলে চলবে না।

প্রাথমিক দিকে আপনার কাজ পেতে অনেক কষ্ট করতে হবে, কিন্তু যখন আপনি একবার ক্লায়েন্টের সাথে ডিলিং করা ও বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম গুলো সম্পর্কে বুঝা যাবেন তখন আপনাকে প্রতি মাসে লক্ষ টাকা আয় করা থেকে কেউ বিরত রাখতে পারবে না।

একটি ব্যবসা শুরু করলে যেমন আপনি প্রথম দিন বা প্রথম মাস থেকেই প্রতি মাসে লক্ষ টাকা ইনকাম করা শুরু করবেন না তেমনি অনলাইন সেক্টরের ক্ষেত্রে এমনটাই। তাই আপনাকে সঠিক স্কেল বা দক্ষতা অর্জন করে সঠিক জায়গায় প্রয়োগের মাধ্যমে ধৈর্য ধারণ করতে হবে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য।

প্রয়োজনীয়তা বুঝতে পারা

অনলাইনে কাজ করার জন্য আপনার কি কি প্রয়োজন এবং আপনাকে কোন কোন দক্ষতা অর্জনের জন্য কি কি স্টেপ অনুসরণ করতে হবে সেই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে হবে। সেই সাথে এটাও জানার জরুরী কোন মৌলিক উপায়গুলো জেনে আপনি অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম শুরু করতে পারেন।

তাই অনলাইনে টাকা ইনকাম করার জন্য ঝাপিয়ে পড়ার আগে আপনাকে আপনার জানতে হবে কিভাবে আপনার স্কেল কোথায় প্রয়োগ করবেন, এবং কিভাবে ধীরে ধীরে আপনি আপনার দক্ষতাকে বৃদ্ধি করবেন।

অনলাইনে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় ২০২৩

বাস্তব জীবনে অনেক ধরনের কাজ সম্পর্কে আমরা জেনে থাকি, তবে অনলাইনে ঠিক কোন কাজগুলো করে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করা যায় সে সম্পর্কে অনেকেই জানেন না।

আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে আরও একটি পোস্ট প্রকাশিত করব যেখানে ব্যবসা করে প্রতি মাসে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সম্পর্কে জানাবো।

ডিসকাউন্টে সকল সিমের মিনিট, ইন্টারনেট ও বান্ডেল অফার
ক্রয় করতে DESH OFFER সাইটে ভিজিট করুন।

এই ব্লগে আমরা আপনি কিভাবে অনলাইন থেকে আপনার দক্ষতা স্কেল বা সময়কে কাজে লাগিয়ে ২০ হাজার টাকা বা তার বেশি টাকা ইনকাম করতে পারেন।

তবে মনে রাখবেন অনলাইন থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে হলে আপনার দেয়া সময়, পরিস্থিতি, কাজের মান ও অভিজ্ঞতা বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। এইসবের উপর উপর ভিত্তি করে আপনার আয়ের পরিমাণ কম বেশি হতে পারে।

১. ইউটিউব ( YouTube )

ইউটিউব থেকে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়
ইউটিউব থেকে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

ইতিমধ্যেই আপনারা অনেকেই জেনে গেছেন যে ইউটিউব থেকে খুব সহজে টাকা ইনকাম করা যায়। তবে বিষয়টি যতটা সহজ ভাবা হয় ততটা সহজ নয়, আবার যতটা কঠিন মনে করা হয় ততটা কঠিন নয়। ইউটিউব থেকে একাধিক উপায়ে টাকা ইনকাম করা যায়।

একটি ভাল চ্যানেলে বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি অনেক স্পন্সর ভিডিও পাওয়া যায়। গুগল এডসেন্স বিজ্ঞাপন থেকে যত টাকা আয় হয় তার থেকেও বেশি টাকা আয় হয় ইস্পন্সর ভিডিও থেকে। তবে শুরুতেই আপনি স্পন্সর ভিডিও পাবেন না। এজন্য আপনাকে প্রথমে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইবার যুক্ত করতে হবে এবং নিয়মিত একটি বিষয়ের উপর ভিডিও প্রদান করতে হবে।

তাই দেরি না করে আজই একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করুন। আপনি সেখানে আপনার পেচ শো করে ভিডিও তৈরি করতে পারেন, তবে আপনি ফেচলেচ ভিডিও তৈরি করতে পারেন।

ইউটিউব চ্যানেলে শুরুতে আপনি খুব ভালো রেসপন্স নাও পেতে পারেন এজন্য আপনাকে নিয়মিত কাজ করতে হবে, একটি ইউটিউব চ্যানেলে নিয়মিত কাজ করলে তিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে আপনি ভাল রেজাল্ট পাবেন।

একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় হচ্ছে নিয়মিত কাজ করে যাওয়া। আপনি যদি নিয়মিত কাজ করেন তাহলে এক বছরের মধ্যে আপনার কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলবো

ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়

২. সোশ্যাল মিডিয়ায় সেল করা (Sales On Social Media)

সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে আপনারা অনেকেই অবগত। বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া গুলো হচ্ছে ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ও whatsapp, গুলিতে মানুষ প্রচুর সময় ব্যয় করে থাকে।

তাই আপনার যদি অনলাইন ব্যবসা করার ইচ্ছা থাকে তাহলে এখনই আপনি আপনার জন্য একটি সোশ্যাল মিডিয়া পেজ তৈরি করুন এবং সেখানে আপনার পণ্যগুলো আপলোড করতে থাকুন। ডিজিটাল মার্কেটিং কে আরো বেশি ত্বরান্বিত করেছে এই সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলো.

আপনি চিন্তা করতে পারবেন না সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে কি পরিমাণ লোক সময় ব্যয় করছে এবং আপনি সঠিকভাবে উপস্থাপন করতে পারলে আপনার কি পরিমাণ সেল হবে। প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় পোস্টে আমি আপনাকে অনুরোধ করছি আপনি যদি অনলাইনে ব্যবসা করার ইচ্ছা থাকে তাহলে সোশ্যাল মিডিয়াগুলো টার্গেট করুন।

হয়তোবা শুরুতে মার্কেট বুঝতে আপনার অ্যাপ থেকে দুই মাস সময় লাগতে পারে তারপর থেকে আপনি প্রতি মাসে নিয়মিত বিশ হাজার টাকা বা তার বেশি আয় করতে পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কিভাবে করতে হয় এই বিষয়ে আপনি ইউটিউবে প্রচুর ভিডিও পেয়ে যাবেন। তাই দেরি না করে আপনার ব্যবসায়িক জীবনকে সফলতম করতে যে কোন একটি বন্য নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া সেল করা শুরু করুন।

আরও পড়ুনঃ

ফেসবুক মার্কেটিং কি?

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব 

 ইমেইল মার্কেটিং কি

৩. ফ্রিল্যান্সিং শুরু করুন (Freelancing)

ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে নিজের দক্ষতা বা স্কিলকে কাজে লাগিয়ে অন্যের কাজে সহায়তা করা, আপনাকে দেয়া কাজগুলো আপনি আপনার ঘরে বসে পছন্দমত সময়ে করতে পারেন এবং প্রচুর টাকা আয় করতে পারেন।

ইতিমধ্যে বাংলাদেশের ঘরে ঘরে ফ্রিল্যান্সিং ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাচ্ছে, এর অন্যতম কারণ হচ্ছে ন্যূনতম ইনভেস্ট ছাড়া নিজের দক্ষতা বা স্কেলকে কাজে লাগিয়ে খুব সহজে মার্কেটপ্লেসগুলো থেকে আয় করা যায়।

তবে এজন্য আপনাকে যেকোনো একটি বিষয়ে স্কিলফুল হতে হবে। সেটি হতে পারে কনটেন্ট রাইটিং, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, সোশ্যাল মিডিয়াম মার্কেটিং, ওয়েব ডেভেলপার, ওয়েব ডিজাইনার, গ্রাফিক ডিজাইনার ইত্যাদি।

ফ্রিল্যান্সিং এর বিভিন্ন ক্যাটাগরি অনুসারে কোন ফ্রিল্যান্সিং স্কিল অর্জন করতে আপনার তিন মাস থেকে এক বছর পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। তবে বেশিরভাগ সময়ে অভিজ্ঞ ফ্রিল্যান্সাররা বলে থাকেন মূল ক্যাটাগরির মধ্য থেকে ছোট ছোট সাব ক্যাটাগরি নিজের সেবা প্রদান করে প্রাথমিক অর্থ ইনকাম শুরু করতে পারবেন আপনি।

এজন্য আপনাকে সঠিক রোড ম্যাপ অনুসরণ করে চলতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং করে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সমূহের মধ্যে সবথেকে জনপ্রিয় উপায় নয় আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে আপনার দক্ষতা কোন বিষয়।

আরও পড়ুনঃ

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো ২০২৩

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো 2023

৪. অনলাইন ট্রেইনার (Online Trainer)

অনেকেই মনে করেন ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করে টাকা ইনকাম, সোশ্যাল মিডিয়া সেল করে টাকা ইনকাম বা ফ্রিল্যান্সিং করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। তাহলে আমি আপনাকে বলব আপনি যেই বিষয়ে ভালো জানেন ওই বিষয়ে লোকেদের ট্রেনিং দেওয়া শুরু করেন।

একজন শিক্ষক থেকে কৃষক সবাই এখন অনলাইনে নিজেদের সমস্যার সম্পর্কে জানতে চাই। আপনি লোকেদের সেই সমস্যা সমাধান করতে পারেন আপনার বাস্তব জীবনে অর্জিত অভিজ্ঞতা শেয়ার করার মাধ্যমে।

আপনি ইউটিউবে সার্চ করলে এমন অনেক ট্রেইনার কে পাবেন যারা বর্তমানে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছেন অনলাইন ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে।

আমি মনে করি আপনি যদি কোন স্কিলফুল লোক হন তাহলে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সময়ের মধ্য থেকে অনলাইন ট্রেনিংকে বেছে নিবেন।

৫. ব্লগিং (Blogging)

ইউটিউব থেকে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়
ইউটিউব থেকে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

আপনি যদি নিজেই নিজের বস হতে চান তাহলে ব্লগিং শুরু করুন। ব্লগিং হচ্ছে অনলাইনে আপনার লেখালেখির মাধ্যমে লোকেদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান দেয়া, যাদের ব্লগার বলা হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আপনি নিজেই নিজের বস আপনার পছন্দমত সময়ে আপনি ব্লগের জন্য কন্টেন্ট লিখবেন এবং তা সম্ভবত প্রকাশ করবেন।

তবে ব্লগিং শুরু করার জন্য আপনাকে প্রাথমিক কিছু ইনভেস্টমেন্ট করার প্রয়োজন হবে। আপনি চাইলে ফ্রি ব্লগস্পট ব্যবহার করে একটি ব্লগ তৈরি করতে পারেন।

তবে নতুনদের জন্য ব্লগার ওয়েবসাইট কাস্টমাইজ করা কিছুটা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার, তাই দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্লগ তৈরি করার জন্য আপনি ডোমেন এবং হোস্টিং ক্রয় করুন, কেননা ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress CMS) কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম মাত্র পাঁচ মিনিট একটি ব্লগ রেডি করতে পারবেন।

ইতিমধ্যে আমাদের এই ব্লগে ব্লগিং সম্পর্কিত অনেক নিবন্ধন প্রকাশ করা হয়েছে। আপনি কিভাবে একটি ব্লক শুরু করতে পারেন, কতদিন সময় লাগে একটি ব্লগ রেঙ্ক হতে এবং কত দিনে ব্লক থেকে টাকা ইনকাম শুরু করতে পারবেন।

তথাপিও আরো একবার বলে দিচ্ছি ব্লগিংয়ের সঠিক নিয়মে কাজ করলে আপনি ৬ মাসের মধ্যে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারেন এবং তবে আপনি যদি ভালো কনটেন্ট লিখতে পারেন তাহলে আরও দ্রুত আরও বেশি টাকা আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে ব্লগিং থেকে বর্তমানে।

আরও পড়ুনঃ

ব্লগ তৈরির সুবিধা কী কী?

ব্লগ লিখে আয় করার উপায়

প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করার সেরা 10 টি উপায় 2023

৬. যেকোন একটি বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হয়ে উঠুন (Specialist)

দেখুন বাস্তব জীবনে যেমন কোন বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করে লোকেরা শিষ্য পর্যায়ে পৌঁছে যায় অনলাইনেও ঠিক এমন কিছু বিষয় রয়েছে যে বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনি বিশেষজ্ঞ হয়ে উঠতে পারেন।

উদাহরণস্বরূপ বলা যায় অনেকেই কন্টেন্ট রাইটিং করেন, তবে সবাই প্রুফ রিডার না। কনটেন্ট অনেকেই লিখতে পারেন সেই কনটেন্ট ইউজারদেরকে কী পরিমান ভ্যালু দিবে এবং কন্টেন্ট ইউজারদের জন্য কতটা উপযোগী এই বিষয়গুলো নিশ্চিত করার কাজটি হচ্ছে প্রুফ রিডারের।

এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সম্পর্কে আপনারা অনেকেই শুনেছেন, বর্তমানে অনেকেই অনলাইনে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসগুলোতে এই কাজ করে থাকেন।

তবে আপনি কি জানেন একজন স্পেশালিস্ট সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজার অনেক বেশি টাকা ইনকাম করেন।

তাই আপনি আপনার স্কিল অনুসারে বিষয়টিতে বিশেষজ্ঞ হয়ে উঠুন, আপনার টাকার অভাব হবে না।

সামনের দিনগুলোতে বিভিন্ন বিষয়ে এনালাইসিস্ট হিসাবে প্রচুর কাজের চাহিদা রয়েছে, এজন্য ওই বিষয়ে বিশেষজ্ঞ লোকদের এসব থেকে বেশি প্রাধান্য দেয়া হবে যারা ইতিপূর্বে ভালো মানের কাজ করেছেন ওই বিষয়ে।

৭. প্রতিলিপিবিদ (Transcriptionist)

Transcriptionist বা প্রতিলিপিবিদ শব্দটি শুনে অনেকেই ভাবছেন এটি কি ধরনের কাজ। বর্তমান সময়ে দ্রুত জনপ্রিয়তা পাচ্ছে প্রতিলিপিবিদ জবটি। কেননা প্রতিটি কোম্পানি তাদের পণ্য বা পরিষেবা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য তাদের কনটেন্ট একাধিক ভাষায় তৈরি করে থাকে।

একাধিক ভাষায় কন্টেন্ট তৈরি করার জন্য একটি ব্লগে অনেক প্রতিলিপিবিদ প্রয়োজন পড়ে। প্রতিলিপিবিদের কাজ হচ্ছে একটি ভাষা থেকে অন্য ভাষায় কন্টেন্টকে রূপান্তর করা। সেটি হতে পারে ভিডিও কনটেন্ট, টেক্সট কনটেন্ট, অডিও কনটেন্ট ইত্যাদি।

ইংরেজি থেকে বাংলায়, বাংলা থেকে ইংরেজি, ইংরেজি থেকে ফার্সি, আরবি, জার্মান ইত্যাদি ভাষায় প্রচুর কোম্পানি তাদের কন্টেন্ট প্রকাশ করছে।

যদিও গুগল ট্রান্সলেট এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা কোন ওয়েবসাইটের লেখাগুলো বুঝে নিতে পারেন, তবে সেই লেখাগুলো কখনোই ইউজার ফ্রেন্ডলি হয় না।

তাই কোম্পানিগুলো তাদের ব্যবহারকারীদের আরো বেশি স্বাচ্ছন্দ দিতে প্রতিলিপিবিদ হায়ার করে তাদের কনটেন্ট গুলোকে মানসম্মত করার চেষ্টা করে থাকে।

প্রতিলিপিবিদ হিসাবে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করার উপায় সম্পর্কে জানতে আপনাকে অবশ্যই বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস গুলিতে এই সম্পর্কিত কাজ খুঁজতে হবে।

৮. প্রুফ রিডিং (Proof Reading)

Google বর্তমানে ইউজার ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট কে বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকে, তাই বড় বড় ওয়েবসাইটগুলো তাদের ব্লগে কোন কন্টেন্ট প্রকাশ করার পূর্বে সেই কনটেন্টকে ভালো করে প্রুফ রিডিং করিয়ে নিতে চায়।

প্রুফ রিডিং হচ্ছে কন্টেন্টের মান, গ্রামাটিকাল মিসটেক, ইউজার তার প্রশ্নের সঠিক উত্তর পেয়েছে কিনা এবং কতটা গ্রাহক বান্ধব এই সম্পর্কিত বিষয়গুলো চেক করা।

একজন কনটেন্ট রাইটার কঠোর পরিশ্রম করে কনটেন্ট লিখেন, পক্ষান্তরে একজন প্রুফ রিডার তার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রুফ রিডিং সম্পন্ন করে প্রচুর টাকা আয় করেন।

তবে বাংলা ভাষায় প্রুফ রিডিং কাজ নেই এজন্য আপনাকে ইংরেজি ভাষায় দক্ষ হতে হবে, তাই আমি আপনাদের অনুরোধ করবো আপনারা যদি ইংরেজি ভাষায় দক্ষ হন কন্টেন্ট রাইটিং অথবা ব্লগিং শুরু করুন তবে এর সাথে সাথে প্রুফ রিডিং সার্ভিসটি বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসগুলোতে দিতে পারেন।

৯. সোশ্যাল মিডিয়া ইন্সুরেন্সার (Social Media Influencer)

সোশ্যাল মিডিয়া ইন্সুরেন্সার বিষয়টিতে এখনো বাংলাদেশের অনেকেই কিছুটা চিন্তিত। আসলে সোশ্যাল মিডিয়া ইন্সুরেন্সার আর কি?

সোশ্যাল মিডিয়া ইন্সুরেন্সার হচ্ছে যে তার প্রতিদিনের কার্যক্রমের ভিডিও তৈরি করে তার সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলোতে আপলোডের মাধ্যমে লোক এদের আকর্ষিত করে এবং সমাজের উন্নয়নে কাজ করে।

এটি একটি ভিডিও তৈরি করে টাকা ইনকাম করার মত ব্যাপার তবে এখানে চিন্তাধারা পুরোটাই ভিন্ন যেখানে সমাজের পরিবর্তনের জন্য কাজ করা হয়।

সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সার হতে হলে নিজেকে প্রচুর সময় দিতে হবে এবং লোকেদের সামনে সঠিকভাবে বিষয়গুলো উপস্থাপন করতে হবে যাতে করে লোকেরা সঠিক জ্ঞান অর্জন করতে পারে।

আপনার দ্বারা যদি লোক উপকৃত হয় তাহলে আপনার জন্য প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করার উপায় খুঁজতে হবে না, টাকা নিজে নিজেই আপনার কাছে চলে আসবে।

১০. আপনার বই প্রকাশ করুন (Publish a Book)

বর্তমানে অনেকেই অনলাইনে নিজের বই সেল করে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় খুঁজে নিয়েছেন। আপনি আপনার জ্ঞান অন্যদের সাথে দ্রুত শেয়ার করতে পারেন একটি বই লেখার মাধ্যমে।

এখন হয়তো আপনি চিন্তা করতে পারেন একটি বই লেখা এবং ছাপানো অনেক বেশি হ্যাসেলের একটি কাজ। আপনার অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে বর্তমানে আপনি খুব সহজেই আপনার লেখাকে পিডিএফ আকারে তৈরি করে লোকেদের কাছে বিক্রি করতে পারবেন।

এজন্য আপনাকে শুধুমাত্র সঠিক নিয়ম অনুসরণ করে লিখতে হবে pdf তৈরি করতে খুব বেশি সময় লাগে না।

যখন আপনার বইটি লোকের কাছে ভালো বার্তা পৌঁছাবে এবং যখন আপনার বইটি প্রচুর সেল হওয়া শুরু হবে তারপর আপনি চিন্তা ভাবনা করতে পারেন যে আপনি কাগজে বইটি প্রিন্ট করবেন।

আরও পড়ুনঃ

কিভাবে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করা যায়?

নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করার নিয়ম অনলাইনে

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে কত টাকা লাগে বাংলাদেশে?

পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম কি?

FAQS – অনলাইনে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় কি?

অনলাইন থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করার উপায় হচ্ছে সঠিক স্কিল অর্জন করা, এর জন্য আমরা আপনাদেরকে এই পোস্টে দশটি বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা সহকারে জানানোর চেষ্টা করেছি।

অনলাইনে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায়?

অনলাইনে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় হচ্ছে ইউটিউব করা অথবা সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সার হাওয়া।

উপসংহার,

আশা করি অনলাইন থেকে প্রতি মাসে মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় ২০২৩ সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত তথ্য খুঁজে পেয়েছেন। এই নিবন্ধে আমরা অনলাইন থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সমূহে মাত্র ১০ টি বিষয় সম্পর্কে জানালাম।

অনলাইনে এমন হাজারো ক্যাটাগরি রয়েছে যেগুলোতে আপনি আপনার ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন এজন্য আপনাকে খুব বেশি কষ্ট করতে হবে না, আপনি বিভিন্ন ইউটিউব ও ওয়েবসাইটে এই সম্পর্কিত বিস্তারিত আরও তথ্য খুঁজে পাবেন।

আপনার রিচার্জ আপনাকে আরো বেশি দক্ষ করে তুলবে, তাই অনলাইন থেকে আপনার পছন্দের উপায়ে টাকা ইনকাম করার জন্য অবশ্যই বেশি বেশি গবেষণা করুন।

আরও পড়ুনঃ

কিভাবে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করা যায়?

কাগজ দিয়ে বানানো সবচেয়ে দামি জিনিস কি

ঘরে বসে অনলাইন ইনকাম করার সঠিক উপায় এবং অনলাইন প্লাটফর্ম কে কিভাবে নিজের ক্যারিয়ার হিসেবে নেয়া যায় সে সকল বিষয়ে আমাদের ওয়েবসাইটে আর্টিকেল রয়েছে।

আপনি সেসকল আর্টিকেল গুলো পাঠের মাধ্যমে খুব সহজে online Income বিষয়ে জানতে পারবেন।

আমাদের ওয়েব সাইটের সকল তথ্য পেতে ফলো করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি

কমদামে মিনিট, ইন্টারনেট ও বান্ডেল অফার কিনতে ভিজিট করুনঃ এখানে ক্লিক করুন
ডিজিটাল টাচ ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এই পেজ ভিজিট করুন
ডিজিটাল টাচ সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুনঃ এই লিংকে
অনলাইনে টাকা ইনকাম সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুনঃ www.digitaltuch.com সাইট ।

Leave a Comment