২৬ মার্চ কি দিবস? | বাংলাদেশে কেন ২৬ মার্চ খুবই গুরুত্বপূর্ণ

প্রিয় পাঠকবৃন্দ ২৬ মার্চ কি দিবস এ বিষয়ে জানার জন্য আপনারা অনেকেই গুগলের মাধ্যমে নিজেদের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা জানব ২৬ মার্চ কি দিবস এবং কেন ২৬ শে মার্চ একটি দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

বাঙালির নানান ইতিহাস সম্পর্কে আমাদের সকলেরই কমবেশি জানা রয়েছে। বিশেষ করে যুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে জানিনা এমন ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া দুষ্কর।

২৬ শে মার্চ হচ্ছে তেমনি আমাদের বাংলাদেশের একটি ঐতিহাসিক দিবসটিকে আমরা প্রতিবছরই পালন করে থাকি।

আজকেরে আর্টিকেল থেকে আমরা আপনাদেরকে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করব ২৬ শে মার্চ কি দিবস এবং ২৬ শে মার্চ সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

26 মার্চ কি দিবস

26 মার্চ কি দিবস
26 মার্চ কি দিবস

 বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস হচ্ছে ২৬শে মার্চ।

পুরো বাঙালি জাতির জন্য এই দিনটি হচ্ছে একটি জাতীয় দিবস হিসেবে পালন করার দিন।

২৫ মার্চ ১৯৭১ সালে রাতের বেলায় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের সংগ্রামের শুরু করেছিল।

এই দিনে রাত্রে বেলা বাঙালির হাজার বছরের নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

তবে মহান এই নেতা গ্রেপ্তার হওয়ার পূর্বে বাঙালির স্বাধীনতার ঘোষণা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রধান করে গিয়েছিলেন।

এর পরের দিন অর্থাৎ ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর পক্ষ থেকে এম এ হান্নান চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশের সকল জনগণের উদ্দেশ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য ঘোষণাপত্র পাঠ করেন।

ঠিক এর পরদিনই ২৭ মার্চ জিয়াউর রহমান চট্টগ্রামের সেই একই কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেন।

১৯৭২ সালের ২২ জানুয়ারি প্রকাশিত এক প্রজ্ঞাপনে এই দিনটিকে বাংলাদেশে জাতীয় দিবস হিসেবে উদযাপন করা হয় এবং সরকারিভাবে এ দিনটিতে ছুটি ঘোষণা করা হয়।

আরও পড়ুনঃ

বিজয় দিবসের সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা

বিজয় দিবস নিয়ে কিছু কথা

ধারালো যন্ত্রপাতি জীবাণুমুক্ত করার ভাল পদ্ধতি কি? 

মহান স্বাধীনতা দিবসের প্রেক্ষাপট 

২৫ মার্চ তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তান সরকার গভীর রাতে বর্তমান বাংলাদেশ অর্থাৎ তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে নিরীহ জনগণের ওপর নির্মম হত্যাকাণ্ড চালায়।

বাংলাদেশের বর্তমান ঢাকায় বিভিন্ন স্থানে গোলাবর্ষণ করা হয়, এবং অনেক জায়গার মধ্যে নারীদের ওপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়।

প্রতিটি জায়গায় পরিকল্পিতভাবে হত্যাকাণ্ড চালানো হয়।

এমন একটি অবস্থায় পুরো বাঙালি জাতির জন্য ঘুরে দাঁড়ানো একেবারে অসম্ভব এর দিকে রূপ নেয়।

সে সময়ে নিরীহ বাঙ্গালীদের মাঝে অনেকেই অনেক আনুষ্ঠানিক ঘোষণার অপেক্ষা করে আবার অনেকেই ধরনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণার অপেক্ষা না করে যুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করে।

এরপরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আনুষ্ঠানিক ঘোষণার পর বাংলাদেশের সাধারণ জনগণ পশ্চিম পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

ভারতের অশেষ সমর্থনের ফলস্বরূপ দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে পশ্চিম পাকিস্তানের হাত থেকে পূর্ব পাকিস্তানকে রক্ষা করতে সক্ষম হয় সাধারন বাঙালিরা।

এবং সেই সময় পৃথিবীর বুকে বাংলাদেশ নামে একটি নতুন দেশের সৃষ্টি হয়।

আরও পড়ুনঃ

মাগো ওরা বলে কবিতা

স্কুল বিদায় বেলার কবিতা

বিজয় দিবসের কবিতা আবৃতি

২৬ মার্চ কি দিবস FAQS

২৬ মার্চ কি দিবস?

বাংলাদেশে ২৬ শে মার্চ হচ্ছে মহান স্বাধীনতা দিবস।

কে ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন?

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন।

উপসংহার 

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই আর্টিকেলে আমরা আপনাদের বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস সম্পর্কে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করেছি।

আশা করি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের ভাল লেগেছে এবং আপনারা আজকের এই আর্টিকেল থেকে ২৬মার্চ কি দিবস।

এবং ২৬ শে মার্চ কেন পালন করা হয় সে সম্পর্কে সবকিছু জানতে পেরেছেন।

আপনাদের যদি এই বিষয়ে আর কোন প্রশ্ন আছে আমাতে আমার থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন।

অনলাইন থেকে টাকা আয়, ডিজিটাল মার্কেটিং, ফেসবুক মার্কেটিং, টেলিকম অফার, ইন্টারনেট অফার বিভিন্ন ধরনের আর্টিকেল গুলো পড়তে আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন।

আপনারা আমাদের ওয়েব সাইট সম্পর্কিত সকল আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে ফলো করুন।

Leave a Comment

three + twelve =