কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায়? কিভাবে কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়া যায়

কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায় কি? আপনারা কি জানেন। আজকের পোস্টের মাধ্যমে আমরা শিখব কিভাবে কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়া যায়। অথবা কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার জন্য কি কি কাগজপত্র এবং কি কি করতে হবে সে সকল বিষয়ে আজকে এ পোস্টের মাধ্যমে আপনাদেরকে সম্পূর্ণ জানানোর চেষ্টা করব।

আপনি যদি একজন কর্মসংস্থান ব্যাংকের গ্রাহক হয়ে থাকেন তাহলে কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে কার্যক্রমসম্পাদনা জন্য কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পদ্ধতি জানা আপনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় একটি বিষয়।

হয়তো আমরা অনেকেই জানি না কর্মসংস্থান ব্যাংকে কিংবা কংগ্রেস সংস্থান ব্যাংক থেকে লোন কিভাবে পাওয়া যায়।

আমাদের আজকের আলোচনা হল কিভাবে আমরা কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন নিতে পারি এবং কর্মসংস্থান ব্যাংক কি কি কাগজপত্র মাধ্যমে তার গ্রাহকদের কে লোন প্রদান করে।

Contents hide
1 কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পদ্ধতির প্রকারভেদ | কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায়

কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পদ্ধতির প্রকারভেদ | কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায়

কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পদ্ধতির প্রকারভেদ
কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পদ্ধতির প্রকারভেদ

আপনি যদি কর্মসংস্থান ব্যাংকের একজন গ্রাহক এবং সেখান থেকে লোন নিতে চান তাহলে আপনাকে বিভিন্ন ধরনের কার্য সম্পাদন করে কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে লোন নিতে হবে।

এবং অবশ্যই কাগজপত্র ঠিক রাখার মাধ্যমে আপনাকে কর্মসংস্থান ব্যাংকের লোন নেয়ার যোগ্যতা অর্জন করতে হবে ।

মূলত কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে লোন নেয়ার অনেকগুলো বিভিন্ন খাত রয়েছে।

আপনাকে লোন নেয়ার জন্য সে সকল খাতের ব্যাংক থেকে লোন নিতে হবে এবং আপনার কার্য সম্পাদন করতে হবে আলাদা আলাদা ভাবে।

আমরা নিচে কি ধরনের খাত থেকে কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন প্রদান করে সকল দিকগুলো আলোচনা করব।

আরও পড়ুনঃ

ইনকামিং কল বন্ধ করার নিয়ম? কিভাবে ইনকামিং কল চালু এবং বন্ধ করতে হয়

৩০+ সেরা মনের স্বার্থপরতা নিয়ে উক্তি

ফুরাত নদী কোথায় অবস্থিত? ফুরাত নদীর সম্পর্কে সকল তথ্য জানুন

নিজস্ব কর্মসূচি | কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায়

  • দেশে যে সকল বেকার রয়েছে, বিশেষ করে যদি আমরা বলতে যাই তাহলে শিক্ষিত বেকার যুবক আত্মকর্মসংস্থান সৃজনের ঋণ প্রদানে সহায়তা কর্মসংস্থান ব্যাংক লোনের অন্যতম।
  • ক্ষুদ্র ব্যবসা ঋণ কর্মসূচীঃ দেশে বেকার বিশেষ করে শিক্ষিত বেকার যুবকদের আত্মকর্মসংস্থানের জন্য ক্ষুদ্র ব্যবসা ঋণ কর্মসূচী।
  • বিদেশে কর্মসংস্থান ঋণ কর্মসূচীঃ  বিদেশ গমনেচ্ছুক যারা রয়েছেন তারা সহজ শর্তে ঋণ প্রদানের মাধ্যমে বিদেশে গমন সহায়তা প্রদান।
  • এছাড়া রয়েছে সরকারের বিশেষ কর্মসূচি।

কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপনে ঋণ সহায়তা কর্মসূচী

  • কৃষিভিত্তিক শিল্পের উন্নয়ন সাধন।
  • গ্রামীণ পর্যায়ে শিল্প বিকাশের সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া।
  • জিডিপিতে কৃষি ভিত্তিক শিল্পের অবদান সৃষ্টি করা।
  • কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি করা।

শিল্প কারখানা/প্রতিষ্ঠানের স্বেচ্ছা-অবসরপ্রাপ্ত/কর্মচ্যুত শ্রমিক/ কর্মচারীদের কর্মসংস্থানে জামানতবিহীন ক্ষুদ্র ঋণ প্রদান কর্মসূচী

শিল্প-কারখানা যেসকল স্বেচ্ছাসেবী অবসর প্রাপ্ত/ কর্মচ্যুত শ্রমিক/কর্মচারী কর্মসংস্থানের জামানতবিহীন ক্ষুদ্র ঋণ প্রদানের মাধ্যমে আত্ম-কর্মসংস্থানের উপযোগী হবে গড়ে তোলা সম্ভব।

মূলত যারা বর্তমান সময়ে অবসরপ্রাপ্ত হয়ে গেছেন অথবা যাদের চাকরি করবার বয়স শেষ হয়ে গেছে এরকম ব্যক্তিদের ঋণের মাধ্যমে বা লোনের মাধ্যমে আত্মকর্মসংস্থান উপযোগী করে তোলা।

বাঝুঁকানিশিনি-বাংলাদেশে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুশ্রম নিরসনকল্পে ঋণ প্রদান কর্মসূচী (EHCLB-Eradication of Hazardous Child Labour in Bangladesh)

আমরা জানি বাংলাদেশ একটি ছোট দেশ।

এদেশে অনেক ছোট বয়সেই নিজেদের পরিবারের অভাবের কারণে অনেক শিশুর আই নিজেদের কাজে নিয়োজিত করে।

একথা যাদেরকে আমরা শিশু শ্রমিক বলে থাকি।

বাংলাদেশের জন্য কাজে নিয়োজিত শিশুশ্রম নিরসন কল্পে শিশু শ্রমিকের পিতা-মাতার আত্মকর্মসংস্থানে ক্ষুদ্রঋণ প্রদান করা।

বাংলাদেশ ব্যাংক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ ঋণ সহায়তা কর্মসূচী (বিবিমপ্রাস)

  • প্রাণিজ যে সকল সম্পদ রয়েছে সেসকল প্রাণিজ আমিষ বৃদ্ধির মাধ্যমে দৈহিক ও মেধার বিকাশ সাধন।
  • অধিক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা।
  • জিডিপিতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ এর অবদানকে অধিকতর বৃদ্ধি করা।

বাংলাদেশ ব্যাংক ‘‘দুগ্ধ উৎপাদন ও কৃত্রিম প্রজনন খাতে পুন:অর্থায়ন স্কীম’’ (বিবিকৃপ)

  • প্রাকৃতিক ছাড়াও কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে জাত উন্নয়ন করে দুগ্ধ উৎপাদন বৃদ্ধি করা।
  • কৃত্তিম সেবা সম্প্রসারণ এর মাধ্যমে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করা ও কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করা।
  • দুগ্ধ উৎপাদন এর মাধ্যমে জিটিভিতে অবদান সৃষ্টি করা।
  • Consumer’s ক্রেডিট স্কিম/ ব্যক্তিগত ঋণ/ ব্যাংকে কর্মরত স্থায়ী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিত্যব্যবহার্য ভোগ্য পণ্য সামগ্রী কাদের মাধ্যমে কোন স্কিমের আওতায় ঋণ প্রদান করা হয়।

কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপ ক্রয়ের জন্য ঋণ

বর্তমান সময়ে ব্যাংকে কর্মরত স্থায়ী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য তথ্যপ্রযুক্তির দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ক্রয়ে ঋণ প্রদান করা হয়ে থাকে।

মূলত আধুনিক ব্যবস্থার এই যুগে কম্পিউটার প্রায় সকল জায়গায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

সে ক্ষেত্রে যদি আমরা চিন্তা করতে চাই তাহলে ব্যাংকে কর্মরত স্থায়ী কর্মকর্তা বা কর্মচারী যারা রয়েছেন তাদেরকে প্রত্যেকের একটি করে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ প্রয়োজন হয়ে থাকে।

সুতরাং কম্পিউটার বা ল্যাপটপ করার জন্য ঋণ প্রদান ও কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন।

গৃহ নির্মাণ ঋণ

ব্যাংকে কর্মরত যেসকল স্থায়ী কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন তাদের আবাসন সুবিধা সৃষ্টির জন্য স্বল্প সুদে ঋণ প্রদান করা।

আমাদের আবাসনের জন্য প্রায় সকলেরই একটি বাড়ি কিংবা আবাসন ব্যবস্থার প্রয়োজন রয়েছে।

তেমনি সরকারি কর্মচারী কিংবা ব্যাংক কর্মকর্তা সকলেরই আবাসন সুবিধার ব্যবস্থা করবার জন্য স্বল্প সুদে ঋণ প্রদান করা হয়।

মোটরসাইকেল ঋণ

বর্তমানে মোটরসাইকেল একটি নিত্য প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ একটি জিনিস। যে কোন গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য একটি সহজ মাধ্যম হলো মোটরসাইকেল।

মোটরসাইকেলের জন্য ব্যাংক থেকে বর্তমান সময়ে ঋণ প্রদান করা হয়ে থাকে।

উপরে যে সকল বিষয়গুলো আপনাদের  সামনে তুলে ধরা হয়েছে সে সমস্ত বিষয় এবং প্রকারভেদ আপনি কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পদ্ধতি জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ

শ্রেণি সংখ্যা কাকে বলে? শ্রেণি সংখ্যা কি? ও এর ব্যাবহার কি?

অবাস্তব সংখ্যা কাকে বলে? অবাস্তব সংখ্যার ব্যবহার

লোন নেয়ার যোগ্যতা

লোন নেয়ার যোগ্যতা
লোন নেয়ার যোগ্যতা

কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে আপনি যদি লোন নিতে চান তাহলে আপনার অবশ্যই কিছু যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।

যোগ্যতা ব্যতীত আপনি কখনোই ব্যাংক হতে লোন নিতে পারবেন না।

নিচে আমরা সে সকল বিষয়গুলো উল্লেখ্য করে দিয়েছি।

  1. অবশ্যই আপনাকে বাংলাদেশী নাগরিক হতে হবে।
  2. আপনার বয়স সীমা হতে হবে 18 থেকে 45 বছরের মধ্যে।
  3. যে কোন প্রকল্পের জন্য লোন নেয়ার আগে আপনার এই প্রকল্প সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অবশ্যই থাকতে হবে।
  4. রিনা যেসকল নীতিমালা রয়েছে সেগুলো অবশ্যই মানার জন্য একনিষ্ঠ থাকতে হবে।

লোন নেয়ার কাগজপত্র | কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায়

মূলত আপনার লোন বড় অংকের টাকার হতে পারে আবার ছোট অংকের টাকার হতে পারে।  সেটি সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করে।  তাহলে আপনাকে ভিন্ন ভিন্ন কাগজপত্র তাদেরকে প্রদান করতে হবে।

তবে একবারে প্রাথমিকভাবে আপনি যদি কাগজপত্রের কথা চিন্তা করেন তাহলে আমরা আপনাদেরকে নিম্নলিখিত কিছু কাগজপত্র কথা বলে দিচ্ছি সেগুলো অবশ্যই আপনাদেরকে কাজে লাগাতে হবে।

  • ঋণ অবদানের জন্য ফরম সংগ্রহ করা।
  • যিনি আবেদন করবেন অর্থাৎ আবেদনকারীর সদ্য তোলা দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি সত্যায়িত করা।
  • যাকে আপনার নমুনা হিসেবে নির্বাচন করবেন সেই নমুনা দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের সত্যায়িত ছবি জমাদান।
  • উদ্যোক্তা এবং এর আন্ডারে স্থায়ী বাসিন্দার প্রমাণপত্র হিসেবে উদ্যোক্তার নমনীর দলিলের ফটোকপি এবং নিকটস্থ ইউপি চেয়ারম্যান বা মেয়রের কিংবা সিটি কর্পোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর কর্তৃক নাগরিকত্ব সনদ জমা দিতে হবে।
  • এছাড়াও এক লাখ টাকার মধ্যে ঋণের ক্ষেত্রে ট্রেড লাইসেন্স এর কপি প্রয়োজন হতে পারে.
  •  আপনি যদি ওষুধের দোকানের জন্য লোন নেন তাহলে অবশ্যই ঔষধের দোকানের ক্ষেত্রে ড্রাগ লাইসেন্স এর কপি প্রয়োজন হতে  পারে।

এগুলো একেবারে প্রাথমিক ভাবে আপনি যদি ঋণ নিতে চান তাহলে এই কাগজপত্রগুলো ব্যবহার করে আপনি ঋণ নিতে পারবেন। তবে আপনার ঋণের পরিমাণ যত বৃদ্ধি হবে ততই কাগজপত্র বৃদ্ধি হতে থাকবে।

ব্যাংক থেকে কত টাকা লোন নেয়া যাবে?

ব্যাংক থেকে কত টাকা লোন নেয়া যাবে
ব্যাংক থেকে কত টাকা লোন নেয়া যাবে

কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে আপনি চাইলে এক লক্ষ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী লোন গ্রহণ করতে পারবেন।

এবং এই ব্যাংকের লোন নেয়ার ক্ষেত্রে  সরল সুদ প্রযোজ্য হয়ে থাকে।

কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে কিভাবে লোন নিবেন? কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায়

এখন কর্মসংস্থান ব্যাংক থেকে লোন নেওয়ার জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম আপনার আশেপাশে থাকা যেকোনো একটি কর্মসংস্থান ব্যাংকের শাখায় যোগাযোগ করতে হবে।

এবং তারপর সেখানে গিয়ে লোন নেওয়ার জন্য আবেদন করার সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে।

আমরা উপরে যে সকল বিষয়গুলো আলোচনা করেছি সেগুলো যদি আপনি এতক্ষণ পর্যন্ত পড়ে থাকেন তাহলে আপনি অবশ্যই বুঝে গেছেন।

কীভাবে বা কোন কোন কাগজ পত্রের মাধ্যমে কর্মসংস্থান ব্যাংকের লোনের জন্য আবেদন করতে হয়।

আরও পড়ুনঃ

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি | কিভাবে জন্ম সনদ ডাউনলোড করবেন

ত্রিভুজ কাকে বলে? ত্রিভুজ কত প্রকার এবং কি কি

রকেটের জ্বালানি হিসেবে কি ব্যবহার করা হয়?

কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায় FAQS

কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায় কি?

নিদিষ্ট কাগজ পত্র জমা এবং নিজস্ব যোগ্যতার মাধ্যমে কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়া যায়।

কর্মসংস্থান ব্যাংক কোথায় রয়েছে?

আপনাদের প্রতিটি জেলায়ই ১ টি করে কর্মসংস্থান ব্যাংক রয়েছে। এ ক্ষেত্রে আপনারা ঊর্ধ্বতন কর্মকত্তা দের সাহায্য নিতে পারেন।

উপসংহার

শুধুমাত্র কর্মসংস্থান ব্যাংক নয় প্রায় সকল ব্যাংকে আমাদের ঋণ প্রদানের জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র এবং গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষীর মাধ্যমে আমাদের ঋণ প্রদান করে থাকে।

আজকের এই পোস্টে আমরা কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায় কি সেই সকল বিষয়গুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।

তবুও যদি এই পোস্ট সম্পর্কিত কোন ধরনের প্রশ্ন কিংবা মতামত আপনাদের কাছে থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন।

আমাদের ওয়েবসাইটটিতে প্রতিদিনই নতুন নতুন বিষয়ে শিক্ষামূলক এবং জ্ঞান অর্জন মূলক পোস্ট রয়েছে।

আপনাদের যদি এই ধরনের পোস্ট পড়তে ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটটি ঘুরে আসতে পারেন।

এবং আপনাদের যদি আমাদের ওয়েবসাইট সম্পর্কিত সকল আপডেট এর প্রয়োজন হয় তাহলে অবশ্যই আমাদের ফেসবুক পেজটি ফলো করে রাখতে পারেন।

Leave a Comment

16 + 7 =