অনলাইন খতিয়ান চেক বড় করার পদ্ধতি কি?

অনলাইন খতিয়ান চেক বড় সম্পর্কে আজকে সবাইকে জানাবো। বর্তমান সময়ে অনলাইনের বদৌলতে আপনি ঘরে বসেই আপনার জমির পর্চা যাচাই করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি চাইলেই আপনার জমির পর্চা বা খতিয়ানের সার্টিফাই কপির জন্য আবেদন করতে পারবেন যেকোনো সময়ে।

এখানে এই পস্তে আজকে আমরা জানবো অনলাইনের মাধ্যমে কিভাবে অনলাইন খতিয়ান চেক বড় বের করে হাতে পাওয়া যায়। 

আপনি আপনার জমির কোনো খতিয়ান কোনো ভেন্ডার থেকে তুলতে চান বা পর্চা তুলতে চান তাহলে আপনাকে কমপক্ষে ৫০০ থেকে ৯০০ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে হবে বিভিন্ন হাতে।

এছাড়াও সময়ের অপচয় এবং ভোগান্তি সহ ভুমি অফিসের ক্লার্ক অথবা তৃতীয় কোনো দালাল চক্র থেকে হয়রানির শিকার। 

তাই, অনলাইনের মাধ্যমে খুব সহজেই শুধু মাত্র ৯০ থেকে ১০০ টাকা খরচ করে খতিয়ান বা পর্চার সার্টিফাই কপি হাতে পেয়ে যেতে পারেন খুব সহজে। 

আজকে আমরা জানবো, কিভাবে অনলাইন খতিয়ান চেক দেখা যায় এবং সার্টিফাই কপি হাতে পাওয়া যায়। আজকের আর্টিকেল পড়ার পরে এই বিষয়ে আর কোনো সমস্যা থাকবে না এই বিষয়ে। জানতে সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। 

অনলাইনের মাধ্যমে খতিয়ান বা পর্চা দেখার জন্য করনীয় । অনলাইন খতিয়ান চেক বড়

অনলাইন ব্যবহার করে জমির খতিয়ান বা পর্চা যাচাই করার জন্য প্রথমে আপনাকে বাংলাদেশ ভুমি অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করতে হবে।

এজন্য আপনি যেকোনো একটি সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে সার্চ অপশনে গিয়ে eporcha লিখে সার্চ করবেন। 

এরপর সার্চ ফলাফলের প্রথম ফলাফলে ক্লিক করলেই আপনি নিচের ছবিটির মতো একটি পেজ ভিউ দেখতে পাবেন। 

এখান থেকে সরাসরি ক্লিক করেও নিচের ছবির মতো পেজ ভিউতে প্রবেশ করতে পারেন। এখানে ক্লিক করুন

জমির খতিয়ান চেক
জমির খতিয়ান চেক

উপরের লিঙ্কে প্রবেশ করার পর আপনি এমন একটি পেজ ভিউ দেখতে পাচ্ছেন।

এবার আপনি আপনার জমির খতিয়ান বা দাগ নাম্বার বা জমির মালিকের নাম বের করার জন্য প্রথমে বিভাগ তারপরে জেলা সিলেক্ট করবেন।

এরপর খতিয়ানের ধরন বা খতিয়ান টাইপ সিলেক্ট করুন। এরপর নিচের যেকোনো একটি তথ্য ব্যবহার করুন।

ব্যবহার করতে পাশে ছোট ঘরে টিক চিহ্ন দিন। এরপর ফাঁকা ঘর আসবে। সেখানে সঠিক তথ্য বসান। এরপর নিচের ক্যাপচা পূরণ করুন খুব সাবধানতার আথে যাতে ভুল না হয়। 

এবার আপনার কাজ শেষ।

আপনি অনুসন্ধান করুন বাটনে ক্লিক করুন।

এবার আপনার কম্পিউটারে বা মোবাইলে আপনার দেওয়া জমির সকল তথ্য দেখা যাবে। 

এতক্ষণ জানা গেলো কিভাবে আপনি আপনার জমির খতিয়ান বা দাগ নাম্বার বের করতে পারবেন অনলাইন খতিয়ান চেক বড় পদ্ধতি ব্যবহার করে।

এবার আমরা জানবো, অনলাইনে জমির খতিয়ান বা পর্চা তোলা অর্থাৎ অনলাইন কপি ব্যবহার করা যায় কি না।

অনলাইন খতিয়ান চেক বড় কি? জেনেছেন আশা করি।

ব্লগ লিখে আয় করার উপায় | ঘরে বসে বাংলা লিখে টাকা আয় করুন! বিকাশ পেমেন্ট

খতিয়ান বা পর্চা অনলাইন কপি কি ব্যবহার করা যাবে? । অনলাইন খতিয়ান চেক বড় 

খুব সহজ ভাবে বললে উত্তর হবে নাহ। অনলাইনের মাধ্যমে বের করা পর্চা বা খতিয়ান বের করে তা শুধুমাত্র তথ্য দেখার কাজে ব্যবহার করা যাবে। এছাড়া জমি কেনা বেচা বা কোনো কাজেই ব্যবহার করা যাবে না।

তবে অনলাইন্র মাধ্যমে আবেদন করা যাবে পর্চা বা খতিয়ানের জন্য। কিভাবে অনলাইনে পর্চা বা খতিয়ানের জন্য আবেদন করতে হয় তা জানতে এই পোস্টটি একটুও বাদ না দিয়ে পড়তে থাকুন। 

উপরের নিয়ম অনুযায়ী আপনি আপনার জমির পর্চা বা খতিয়ান চেক করলেন।

যদি সকল তথ্য সঠিক থাকে তাহলে আপনি সার্টিফাই কপির জন্য অনলাইনেই ফি প্রদান করে আবেদন করতে পারবেন।  

তবে অনলাইনের কপি আপনি ডাউনলোড করে প্রিন্ট ও করতে পারবেন।

তবে, আপনি চাইলেই মাত্র ৯০ টাকার খরচে সার্টিফাই কপি পেতে পারেন। 

আরও পড়ুনঃ

জমির দাগ নম্বর থেকে খতিয়ানটি বের করুন দাগসূচি জানার পদ্ধতি

জন্ম নিবন্ধন দেখব online System | অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন দেখা

BRTA Online Registration Check BD | অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন চেক পদ্দতি

জমির খতিয়ান চেক পদ্ধতি

এতক্ষণে জানতে চেষ্টা করলাম অনলাইন থেকে বের করা জমির খতিয়ান বা পর্চা স্বাভাবিক কোনো কাজে ব্যবহার করা যাবে কি না।

এবার জানবো, অনলাইনের মাধ্যমে কিভাবে অনলাইন খতিয়ান চেক বড় উপায়ে সার্টিফাই খতিয়ান বা পর্চার জন্য আবেদন করবেন।

এবং এই আবেদন করার জন্য কি কি প্রয়োজন হবে। 

অনলাইনের মাধ্যমে সার্টিফাই খতিয়ান বা পর্চা হাতে পাওয়ার উপায় । অনলাইন খতিয়ান চেক বড়

অনলাইনের মাধ্যমে সার্টিফাই খতিয়ানের জন্য আবেদন করতে প্রথমে উপরের নিয়ম অনুযায়ী প্রথমে আপনাকে খতিয়ান বা পর্চা চেক করতে হবে।

যদি আপনার জমির খতিয়ান বা পর্চা ঠিক থাকে তাহলেই আপনি ওই পেজেই অনলাইনে আবেদন করার অপশন পাবেন সার্টিফাই কপি হাতে পাওয়ার জন্য। 

এবং, এই পদ্ধতিতে আবেদন করার জন্য আবেদন নিশ্চিত করার সময় আপনাকে অনলাইনের মাদ্ধমেই ৪০ টাকা ফি বাবদ দিতে হবে। 

তবে, অনলাইনে আবেদন করার জন্য প্রথমেই বাংলাদেশের একজন বৈধ নাগরিক হতে হবে। 

শুধু দেশের বৈধ নাগরিক হলেই হবে না। এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার এনআইডি নাম্বার এবং মোবাইল নাম্বার এবং ঠিকানা সহ আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চাবে।

সেখানে আপনাকে যাবতীয় তথ্য ইনপুট করে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে।  

এক্ষেত্রেও ঠিক একই ওয়েবসাইট ব্যবহার করতে হবে।

অর্থাৎ, eporcha ওয়েবসাইট এ ক্লিক করার পর নিচের ছবির মতো একটি পেজ ভিউ দেখা যাবে।

সেখান থেকে লাল চিহ্ন দেওয়া বাটনে কার্সর রাখার পরে “খতিয়ানের জন্য আবেদন” নামে একটি অপশন দেখতে পাবেন।

সেখানে ক্লিক করে পরযায়ক্রম্মে তথ্য ইনপুট করে ফি প্রদান করে দাআক যোগের মাধ্যমে ঘরে বসেই আপনি আপনার জমির খত্তিয়ান বা পর্চা হাতে পেয়ে যাবেন। 

এখান সরাসরি ই পর্চার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে এখানে ক্লিক করুন। ই পর্চার জন্য আবেদন করুন  

অনলাইন খতিয়ান চেক বড়
অনলাইন খতিয়ান চেক বড় সাইট

আপনার জমির খতিয়ান বা পর্চা খুব জরুরি হলে জরুরি এর ঘরে টিক চিহ্ন দিয়ে দিন।

সকল সঠিক তথ্য পূরণ করে আবেদন সম্পন্ন করুন আগের মতোই।

এভাবেই মাত্র কয়েকদিনের মধ্যে আপনার জমির খতিয়ান বা পর্চা আপনার বাড়িতে পৌঁছে যাবে।

অনলাইনে জমির খতিয়ান চেক বড় FAQS

অনলাইন খতিয়ান চেক বড় কি?

অনলাইন খতিয়ান চেক বড় হচ্ছে ঘরে বসে জমির খতিয়ান বা দাগ নাম্বার বের করার পদ্ধতি, অনেকে একে অনলাইনে খতিয়ান চেক বড় পদ্ধতি বলে থাকেন।

জমির খতিয়ান চেক কিভাবে করবেন?

ঘরে বসে জমির খতিয়ান চেক করতে eporcha লিখে সার্চ করে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে তথ্য প্রদান করুন। eporcha ওয়েবসাইট সঠিক তথ্য প্রমান প্রদানের মাধ্যমে সহজেই জমির খতিয়ান চেক করা যায়।

আরও পড়ুনঃ

সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা কি । সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা প্রবর্তন

নতুন মিটারের জন্য অনলাইনে আবেদন

উপসংহার

আশা করছি আজকের পোষ্টের মাধ্যমে আপনাদের বোঝাতে চেষ্টা করেছি কিভাবে অনলাইন খতিয়ান চেক বড় এর মাধ্যম হাতে সার্টিফাই খতিয়ান বা পর্চা পাওয়া যায়। 

আশা করছি, সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার পরে এ নিয়ে আর কোনও দ্বিধা বা অজ্ঞতা থাকবেনা।

সব বিষয়েনিত্য নতুন সব আর্টিকেল পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট।

চোখ রাখুন আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে। 

আরও পড়ুনঃ

জিপিএফ হিসাব দেখার নিয়ম

টিকটক ভিডিও কিভাবে বানাবো

সোনালী ব্যাংক লোন নেওয়ার নিয়ম 

Leave a Comment

3 × two =